নয়াদিল্লি: করোনা ভাইরাস মহামারীর আকার নিয়েছে চিনে৷ ইতিমধ্যেই ৮০ জনের মৃত্যু হয়েছে৷ আক্রান্ত হয়েছে প্রায় তিন হাজার জন৷ করোনা ভাইরাসের ভয়াবহতা কথা মাথায় রেখে চিন থেকে ভারতীয় নাগরিকদের ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা করছে কেন্দ্র সরকার৷

চিনে আটকে রয়েছেন বাংলার ২ গবেষক৷ চিনের উহানে তারা আটকে আছেন৷ এই দুই গবেষক পশ্চিমবঙ্গে বর্ধমান, বীরভূমের বাসিন্দা৷ ভারতীয়দের ফেরাতে বিশেষ বিমানের ব্যবস্থা করছে কেন্দ্র সরকার৷ অর্থাৎ উহান থেকে ভারতীয়দের ফেরাতে প্রস্তুত বিশেষ বিমান৷

এমনটাই ক্যাবিনেট নেতৃত্বে বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে৷ চিনের পাশাপাশি আতঙ্ক ছড়িয়ে ভারতেও৷ হায়দ্রাবাদ,রাজস্থান,বিহারসহ ৫ রাজ্যে সবচেয়ে বেশি আতঙ্ক ছড়িয়েছে৷ এরই মধ্যে কলকাতার হাসপাতালে মৃত্যু হয়েছে থাইল্যান্ডের এক তরুণীর৷ তবে করোনা ভাইরাসে মৃত্যু কিনা, খোঁজ নিচ্ছে স্বাস্থ্য দফতর৷

রুবি হাসপাতাল সূত্রে বলা হয়েছে, থাইল্যান্ডের তরুণী‘শ্বাসকষ্ট নিয়ে ভর্তি হয়েছিলেন, রাখা হয়েছিল ভেন্টিলেশনে,যেহেতু নোভেল করোনা ভাইরাসের উপসর্গ ইনফ্লুয়েঞ্জার মতোই, তাই থাইল্যান্ডের তরুণীর মৃত্যুর কারণ এই ভাইরাস কিনা, তা খোঁজ নিচ্ছে স্বাস্থ্য দফতর৷

অন্যদিকে ভয়ঙ্কর চিনা ভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে এক চিনা যুবতীকে ভরতি করা হয়েছে বেলাঘাটা আইডি হাসপাতালে৷ গতকাল রাতে ওই যুবতীকে ভরতি করা হয়৷ হাসপাতাল সূত্রে খবর,৬ মাস আগে বিদেশভ্রমণে বেরিয়েছিলেন ২৮ বছরের হুয়ামিন৷

রবিবার তিনি কলকাতায় আসার পথে অসুস্থ বোধ করেন৷ আচমকা শরীরের তাপমাত্রা বেড়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে, মাথা যন্ত্রণা শুরু হয়৷ প্রথমে চিনা নাগরিক হুয়ামিনকে ইএম বাইপাসের কাছে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়৷ রাতেই তাঁকে নিয়ে আসা হয় বেলেঘাটা আইডি-তে৷

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হিসাবে তাঁকে সন্দেহ করা হলেও যুবতীর চিকিৎসার জন্য সমস্যা হয়ে দাঁড়াচ্ছে ভাষা৷ করোনার উপসর্গগুলি জেনে তিনি এর আগে থেকেই কোনও রোগে আক্রান্ত ছিলেন কি না তা জানার চেষ্টা করছেন চিকিৎসকরা৷

এদিকে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ থেকে শুরু রাজ্যের স্বাস্থ্য আধিকারিক এই বিষয়ে কোনও মন্তব্য করতে চাননি সংবাদ মাধ্যমে।প্রসঙ্গত রাজ্যের উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে এবং কলকাতায় বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে নোভেল করোনা ভাইরাসে আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য ব্যবস্থা করা হয়েছে ।