লখনউ: গাড়ি দুর্ঘটনার পরেই মৃত্যু হল কুখ্যাত গ্যাংস্টার বিকাশ দুবের। মধ্যপ্রদেশ থেকে উত্তর প্রদেশে তাঁকে নিয়ে আসার সময় পুলিশ কনভয়ের একটি গাড়ি উলটে দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গিয়েছে। এরপরেই পুলিশের সঙ্গে গুলির লড়াই চলে বিকাশ দুবের।

বৃহস্পতিবার মধ্যপ্রদেশ থেকে গ্রেফতার করা হয় এই কুখ্যাত গ্যাংস্টারকে। পুলিশ সূত্রে খবর, গাড়ি উলটে যেতেই পালানোর চেষ্টা করেছিল ৮ পুলিশ খুনে অভিযুক্ত এই গ্যাংস্টার। এ সময় তাঁকে গুলি করে হয়।

পুলিশ জানিয়েছে, গাড়ি উলটে যাওয়ার পরেই এক পুলিশ কর্মীর পিস্তল নিয়ে পালানোর চেষ্টা করে বিকাশ দুবে। পুলিশের দিকে সে গুলিও ছোঁড়ে বলা দাবি করা হয়েছে। এরপরেই পালটা গুলি চালায় পুলিশ। পুলিশের গুলিতে আহত হয় বিকাশ দুবে। তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে মৃত বলে ঘোষণা করে চিকিৎসকেরা।

উল্লেখ্য, গত সপ্তাহে উত্তর প্রদেশের কানপুরে ৮ পুলিশ কর্মী হত্যার মূল অভিযুক্ত এই বিকাশ দুবে। পুলিশের ওপর হামলা চালানোর পর থেকেই পলাতক ছিল এই কুখ্যাত দুষ্কৃতি। তার নামে খুন, অপহরণ, দাঙ্গা, জোরজলুম করে টাকা আদায় সহ মোট ৬০ টি মামলা দায়ের রয়েছে।

বৃহস্পতিবার মধ্য প্রদেশের উজাইনের মহাকাল মন্দিরে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারের আগে বিকাশ দুবেকে শেষবার দেখা গিয়েছিল হরিয়ানায়। সেখান থেকে সে কীভাবে মধ্যপ্রদেশ গেল তা এখনও জানা যায়নি। তাঁর বাড়ি কানপুর থেকে ৬০০ কিমি দূরে গ্রেফতার করা হয় তাঁকে।

উল্লেখ্য, নাটকীয় ভাবে ধাওয়া করে মধ্যপ্রদেশের একটি মন্দির থেকে গ্রেফতার করা হয় বিকাশ দুবেকে। গ্রেফতারের সময় কুখ্যাত গ্যাংস্টারের দম্ভ এততুকু যায়নি। উলটে সে চিৎকার করে বলতে থাকে “ম্যায় বিকাশ দুবে হু। কানপুরওয়ালা!” এরপরেই ভিডিওতে দেখা যায়, গ্যাংটারের চিৎকার শুনেই এক পুলিশ কর্মী তাঁকে চড় কষিয়ে বলছেন ‘আওয়াজ নেহি” (শব্দ করো না)।

এরপর শুক্রবার সকালে গ্যাংস্টারকে গাড়িতে করে ফেরানোর সময় দুর্ঘটনার কবলে পুলিশের কনভয়। সেখান থেকেই পালানোর চেষ্টা করছিল বিকাশ দুবে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.