লখনউ: ফের ভূমিকম্প দেশে। পর পর ভূমিকম্পে কেঁপে উঠছে দেশের একপ্রান্ত থেকে অপর প্রান্ত। এবার ভূমিকম্প আঘাত করল যোগীরাজ্য উত্তর প্রদেশে। জানা যাচ্ছে রিখটার স্কেলে ভূমিকম্পের মাত্রা ৫.০।

উত্তর প্রদেশের ফতেহপুরে এই ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছে বলে জানানো হয়েছে। জানানো হয়েছে লখনউ থেকে ৫৯ কিমি দূরে ছিল এই ভূমিকম্পের উৎসস্থল। ভূপৃষ্ঠ থেকে মাত্র ৫ কিমি গভীরে ভূমিকম্প আঘাত হানে বলে খবর। মঙ্গলবার সকাল ৯ টা বেজে ৫৫ মিনিট ৫ সেকেন্ডে এই ভূকম্পন অনুভূত হয়।

তবে এখনও কোনও ক্ষয় ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি। বা কোনও আহত অথবা নিহত হওয়ার খবরও সামনে আসেনি।

উল্লেখ্য, এর আগে রবি ও সোম পর পর দুদিন লাদাখে ভূমিকম্প হয়। চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহেই ভূমিকম্পে কেঁপে উঠেছিল দিল্লি। এমনকি অদূর ভবিষ্যতে আরও বড়সড় ভূমিকম্পের বার্তাও দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

একের পর মৃদু কম্পনের জেরে আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। এই কম্পনগুলি কম মাত্রার হলেও আগামী দিনে বড় বিপর্যয়ের আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। একের পর এক ভূমিকম্পে কেঁপে উঠছে দেশ। যা নিয়ে রীতিমতো আশঙ্কার মেঘ দেখা দিচ্ছে ভূ-বিজ্ঞানীদের কপালে। প্রায় প্রতিদিনই দিল্লি, লাদাখ, মিজোরাম, ত্রিপুরা , হরিয়ানার মতো একাধিক এলাকায় ভূমিকম্প হচ্ছে। এই প্রসঙ্গে মার্কিন জিওলজিক্যাল সার্ভে-র রিপোর্ট বলছে, কোনও জায়গায় ছোট ছোট একাধিক কম্পন পর পর হওয়ার অর্থ বড় ভূমিকম্প হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে ।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.