জয়পুর: করোনা ভাইরাস মেরে ফেলতে সক্ষম এমন দাবি জানিয়ে সামনে এসেছে পতঞ্জলির ‘করোনিল’। তবে জানা যাচ্ছে, ঠিক কয়েকদিনের মধ্যেই যোগগুরু রামদেব সহ আরও পাঁচজনের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হয়েছে।

অভিযোগে স্পষ্ট জানানো হয়েছে, করোনা নিরাময়ে সক্ষম পতঞ্জলির করোনিল নিয়ে রামদেব প্রচারমূলকভাবে সাধারণ মানুষকে ভুল পথে চালনা করেছেন।

মঙ্গলবার অর্থাৎ জুনের ২৩ তারিখ পতঞ্জলির ‘করোনিল’ আনার পর থেকেই নানা বিতর্কের সামনে এসেছে। আয়ুষ মন্ত্রক করোনিল বিষয়ক তথ্য চেয়েছে এবং করোনা ভাইরাসের ওষুধ হিসেবে এই ওষুধের প্রচার চালাতে বিজ্ঞাপনে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

শুক্রবার জয়পুরের জ্যোতিনগর পুলিশ স্টেশনে রামদেব সহ পতঞ্জলির এমডি আচার্য বালকৃষ্ণ, বিজ্ঞানী অনুরাগ ভার্শনে, এনআইএমএস চেয়ারম্যান বলবীর সিং তোমার এবং ডিরেক্টর অনুরাগ তোমার-এর বিরুদ্ধে ভূল প্রচার চালানোর অভিযোগে এফআইআর দায়ের করা হয়েছে।

এ বিষয়ে জ্যোতিনগর পুলিশ স্টেশনের অফিসার সুধীর কুমার উপাধ্যায় ইন্ডিয়া টুডে’কে জানিয়েছেন, “হ্যাঁ, বাবা রামদেব, আচার্য বালকৃষ্ণ, বিজ্ঞানী অনুরাগ ভার্শনে, বলবীর সিং তোমার, অনুরাগ তোমার-এর বিরুদ্ধে FIR দায়ের করা হয়েছে”।

বলরাম জাখর নামে একজন ব্যাক্তি এফআইআর দায়ের করেছেন বলেও জানা গিয়েছে। তিনি বলেছেন, “রামদেব সহ মোট ৫ জনের বিরুদ্ধে করোনিল নিয়ে মিথ্যা প্রচারের অভিযোগে এফআইআর দায়ের করা হয়েছে”। ভারতীয় দন্ডবিধির ৪২০ ধারা সহ একাধিক ধারায় এফআইআর দায়ের করা হয়েছে বলেই জানা গিয়েছে।

বলবীর সিং তোমার জানিয়েছিলেন, রোগীদের উপর করোনিল ট্রায়াল দেওয়ার অনুমতি পতঞ্জলির কাছে রয়েছে। যোগগুরু রামদেবের দাবি জানিয়েছিলেন, করোনা আক্রান্ত রোগীকে যদি ‘করোনিল’ দেওয়া হয়, তবে নাকি তাঁর ১০০ শতাংশ সুস্থ হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

সংবাদসংস্থা এএনআইকে দেওয়া সাক্ষাতকারে বালকৃষ্ণ বলেছিলেন, মারণ করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পরেই পতঞ্জলী কয়েকজন গবেষকের একটি টিম তৈরি করে। ওষুধ তৈরির কাজ শুরু হয়। কীভাবে এই মারণ ভাইরাসকে জয় করা যায়, তা নিয়েই পরীক্ষানিরীক্ষা চলছিল এতদিন ধরে।

পতঞ্জলী এই কাজে ১০০ শতাংশ সাফল্য পেয়েছে বলে জানিয়েছেন সংস্থার সিইও। এই ওষুধ আয়ুর্বেদের আশীর্বাদ বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি। তবে এরই সাথে যোগব্যায়ম ও সুষম খাদ্যাভ্যাস জরুরি বলে জানিয়েছেন তিনি। করোনিল নামের এই আয়ুর্বেদিক ওষুধ করোনা ভাইরাস নির্মূল করতে ১০০ শতাংশ কার্যকরী, এমনই দাবি ছিল রামদেবের পতঞ্জলির।

প্রশ্ন অনেক: তৃতীয় পর্ব