file pic

কলকাতা:  আচমকাই অসুস্থ হয়ে পড়লেন রাজ্যের সমবায় মন্ত্রী অরূপ রায়। রবিবার ভোরে আচমকাই শ্বাসকষ্ট এবং বুকে ব্যাথা অনুভব করেন।

হঠাত এই অবস্থায় কোনও রিস্ক নিতে চাননি মন্ত্রীর পরিবারের সদস্যরা। এরপরই তাঁকে তড়িঘড়ি ভরতি করা হয় উডল্যান্ডস হাসপাতালে। প্রাথমিক পরীক্ষার পরই তাঁকে হাসপাতালে ভরতি করার সিদ্ধান্ত নেন চিকিৎসকরা।

তবে, অরূপ রায়ের ঘনিষ্ঠ মহল সূত্রে খবর, শনিবার থেকেই অসুস্থতা বোধ করছিলেন তিনি। যদিও হাসপাতালে ভরতি করার মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়নি।

কিন্তু, রবিবার ভোরে শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটতে থাকে। বুকে ক্রমশ ব্যাথা বাড়তে থাকে। আর সেই কারণে কয়েকদিন হাসপাতালে বিশ্রামের পরামর্শ দিয়েছেন ডাক্তাররা। শুধু তাই নয়, বেশি কিছু টেস্টও দেওয়া হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। তবে এখনই তৃণমূল বিধায়কের শারীরিক অবস্থা নিয়ে উদ্বেগের কিছু নেই বলে জানা গিয়েছে।

হাওড়া তৃণমূল সূত্রে জানা গিয়েছে, শনিবার বিকেলে হাওড়া তৃণমূল সদর কার্যালয়ে ছিলেন অরূপ রায়। সেই সময় হঠাৎই বুকে ব্যথা অনুভব করেন তিনি। বুকে অস্বস্তি নিয়েই বাড়িতে চলে যান। পারিবারিক চিকিৎসক তাঁকে দেখে প্রয়োজনীয় ওষুধপত্র দেন।

সেই সময়ের মতো পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলেও ভোররাত থেকে বাড়তে থাকে বুকে ব্যথা। এরপর আর তাঁকে বাড়িতে রাখা নিরাপদ মনে করেননি চিকিৎসকরা।

তাঁকে আনা হয় উডল্যান্ডস হাসপাতালে। তবে রাজ্যের মন্ত্রী তথা হাওড়া (শহর) তৃণমূল সভাপতির শারীরিক অবস্থা এই মুহূর্তে স্থিতিশীল বলেই হাসপাতাল সূত্রে খবর।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।