নয়াদিল্লি: করোনা পরিস্থিতিতে যা সবচেয়ে বেশি নজর কেড়েছে তা হল নিজামুদ্দিনের তবলিগি জামাতের ধর্মীয় অনুষ্ঠান। দেশে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধির নেপথ্যে অন্যতম মূল কারণ নিজামুদ্দিন। তবে বৃহস্পতিবার দিল্লি এক আদালত তবলিগি জামাতের ধর্মীয় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন এমন ৯২ জনকে জামিন দিয়েছেন বলেও জানা গিয়েছে।

মার্চের প্রথম দিন থেকে দিল্লির নিজামুদ্দিনে তবলিঘি জামাতের সমাবেশে ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া-সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে ধর্মপ্রচারকরা এসে জড়ো হয়েছিলেন। ওই সব দেশে তত দিনে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হয়ে গিয়েছে। কেন তাঁদের এ দেশে আসা আটকানো হল না, সেই প্রশ্ন ওঠার আগেই করোনাভাইরাস সংক্রমণ ছড়ানোর একটি বড় উৎস হয়ে ওঠে ওই সমাবেশ। তবলিঘি জামাতের ভবন বা মরকজ থেকে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ সারা দেশে ছড়িয়ে পড়ে সেখানে ‌অংশ নেওয়া সদস্যদের মাধ্যমে।

দেশের বিভিন্ন রাজ্যে ফেরত যাওয়া ওই সদস্য়দের মাধ্যমে সংক্রমণ বৃদ্ধির হার এতটাই বেড়ে যায় যে তা রুখতে একাধিক পদক্ষেপ নেয় কেন্দ্র। রাজ্যগুলিকে সমাবেশ-ফেরতদের চিহ্নিতকরণের নির্দেশ দেওয়া হয়। আয়োজকদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের হয়। এমনকী বিদেশ থেকে আসা ধর্মীয় প্রচারক এবং তবলিঘিদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেয় কেন্দ্র।

এপ্রিলের ২৮ তারিখ ১০ ইন্দোনেশীয় নাগরিককে গ্রেফতার করেছিল মুম্বই পুলিশ। ট্যুরিস্ট ভিসার নিয়ম লঙ্ঘন করে, গত মার্চে দিল্লির নিজামউদ্দিনের ধর্মীয় সমাবেশে যোগ দেওয়ায়, তাঁদের গ্রেফতার করা হয়েছিল। দিল্লির সমাবেশ থেকে বাণিজ্যনগরীতে ফিরে, ধৃতরা ২০ দিন কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন। কোয়ারেন্টাইন পর্ব শেষ হওয়ার পরেই এদিন ওই বিদেশি নাগরিকদের গ্রেফতার করা হয়।

দিল্লির নিজামুদ্দিন মার্কাজে হয়েছিল এক বড়সড় জমায়েত। আর সেখানে এসেছিলেন বহু বিদেশি। সেখান থেকে একের পর এক করোনা সংক্রমণের খবর আসতে শুরু করেছে, যা রীতিমত উদ্বেগের। ইতিমধ্যেই জোরকদমে খোঁজ খবর শুরু হয়েছে সব রাজ্যে।

সরকারি পত্রে লেখা রয়েছে, ওই ধর্মসভায় উপস্থিতদের মধ্যে ৯৪জন ছিলেন ইন্দোনেশিয়ার, ১৩ জন কিরগিস্তান থেকে, ৯ জন বাংলাদেশ থেকে, ৮ জন মালয়েশিয়ার, ৭ জন আলজেরিয়ার। এছাড়া তিউনিসিয়া, বেলজিয়াম ও ইটালি থেকে ১ জন করে এসেছিলেন। আর বাকিরা ছিলেন ভারতীয়। মার্চ মাসের ১৩ তারিখ থেকে নিজামুদ্দিনের মার্কাজের সদর দফতরের অঞ্চলের বাংলাওয়ালি মসজিদের ধর্মীয় অনুষ্ঠানের জমায়তে এই ঘটনা ঘটেছে।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ