শ্রীনগর: অনেক রক্ত ঝরেছে ভারতের সীমান্ত রক্ষায়। পাকিস্তান যে না জিততে পারে। কার্গিল যুদ্ধে জয়ের ১৭ বছর পর সেই যুদ্ধের মাটিতে দাঁড়িয়ে এই কামনা করলেন শহীদ মেজর সিবি দ্বিবেদীর দুই কন্যা দীক্ষা ও নেহা। ২৭ জুলাই কার্গিল জয়ের ১৭ বছর পূর্তিতে সেই স্থানে গেলেন তাঁরা, যে মাটিতে শেষ লড়াই লড়েছিলেন মেজর দ্বিবেদী। তেরঙার দিকে তাকালে গর্ব চোখ জ্বলে ওঠে তাঁদের। কিন্তু বাবার জন্য চোখে জল আনতে চান না দুই বোন। কারণ বেঁচে থাকতে কখনও তাঁদের মুখ থেকে হাসি সরতে দিতেন না বাবা।

১৭ বছর পরে মায়ের সঙ্গে সেখানে গেলেন দুই বোন। আজও আই জায়গাকে তীর্থক্ষেত্র বলেই মনে করেন তাঁরা। কারণ এখানেই প্রাণ দিয়েছেন বহু সৈনিক, যাঁরা পরিবারের আগে বেছে নিয়েছিলেন দেশকে। এই প্রথম ওই স্থানে গেলেন তাঁরা। কিন্তু যেভাবে রাতের অন্ধকারে তাঁদেরকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে, তা তাঁদের কষ্ট দিয়েছে। এত প্রাণের বিনিময়েও আজও কেন এইভাবে চোরের মত আসতে হচ্ছে, তা অত্যন্ত দুঃখ দেয় তাঁদের। অশান্ত কাশ্মীরের কার্ফুর মধ্যে দিয়ে তাঁদের নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তায় নিয়ে যাওয়া হয়।

এদিন দীক্ষা দ্বিবেদী কাশ্মীরের বিক্ষুব্ধ মানুষের উদ্দেশে একটাই বার্তা দেন, ‘আমাদের বাবা পরিবারের আগে দেশকে বেছে নিয়েছিলেন। তাই পাকিস্তানের মদতপুষ্ট বিচ্ছিন্নতাবাদীদের উদ্দেশে বলছি, অনেক রক্ত ঝরেছে সীমান্ত রক্ষায়। কখনও পাকিস্তান যেন না জিততে পারে।’ শুধুমাত্র দীক্ষা ও নেহাই নন, একাধিক জওয়ানের পরিবারের সদস্যরা এদিন এসেছিলেন কার্গিলে। প্রত্যেকে সগর্বে শ্রদ্ধা জানালেন শহীদদের।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV