জাপান: বিশ্বের জ্যেষ্ঠতম পুরুষ ইয়াসুতারো কোয়ডে চলে গেলেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ১১২ বছর। এর আগে আর কেউ এতদিন বাঁচেননি। বিশ্বের প্রবীণতম ব্যক্তি হিসেবে গত জুলাইয়ে গিনেস বুকেও নাম তুলেছেন কোয়ডে।

জানা গিয়েছে, ইয়াসুতারো কোয়ডে ছিলেন জাপানের বাসিন্দা। ১৯০৩ সালের ১৩ মার্চ তিনি জাপানের রাজধানী টোকিও-র উত্তর পশ্চিমের ফুকুই প্রদেশে জন্মগ্রহণ করেন। তারপর অবলীলায় বয়সের দিক থেকে সেঞ্চুরি করেন কোয়ডে। এরপর অনেকেই তাঁর কাছে এতদিন বেঁচে থাকার চাবিকাঠির প্রধান রহস্য জানতে চান। এর জবাবে স্ট্রেট ফরোয়ার্ডিংভাবে কোয়েডো বলতেন, সর্বদাই প্রাণখোলা এবং আনন্দে থাকাই তাঁর বেঁচে থাকার চাবিকাঠির অন্যতম রহস্য। তাহলে কী এমন হল, যে আরও অর্ধশতক পার করতে পারলেন না তিনি। এর জবাব দেন চিকিৎসকরা। বলেন, বার্ধক্যজনিত কারণে বেশ অনেকদিন ধরেই কোয়েডো অসুস্থ ছিলেন। কয়েকদিন আগে তাঁর নিউমোনিয়া ধরা পড়ে। এরপর হৃদযন্ত্র বিকল হয়েযাওয়ায় গত মঙ্গলবার মারা যান তিনি।
প্রসঙ্গত, বর্তমানে  জাপানে ৬৫ বছরের বেশি বয়সী মানুষের সংখ্যা প্রায় ১২৭ মিলিয়ন। সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, পৃথিবীর অন্যান্য দেশের তুলনায় জাপানীদের বেঁচে থাকার আয়ু অনেক বেশি হয়। ইয়াসুতারো কোয়ডেও জাপানী ছিলেন। 'গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড' এর রের্কড অনুযায়ী, ইয়াসুতারো কোয়ডের মৃত্যুর পর বর্তমানে পৃথিবীর বয়স্কতমদের তালিকার শীর্ষে এক মহিলা। তাঁর নাম সুনা মুশেট জোন্‌স। সুনা জন্মগ্রহণ করেন ১৮৯৯ সালে, আমেরিকায়। বর্তমানে তাঁর বয়স ১১৬ বছর।