কলকাতা:  বরানগরের ইতিহাস আর ইতিহাসের বরানগর। প্রাচীন এই জনপদের ইতিহাস শ্রীচৈতন্যদেবের সময় থেকে নকশাল আন্দোলন বার বারই সংবাদ শিরোনামে উঠে এসেছে। আর এই দীর্ঘ সময়ের দলিলে কোন মহাপ্রাণ এর নাম বরানগরের সংগে জড়িয়ে নেই? এ জনপদের ইতিহাস মুখে ফিরলেও, তেমন লিখিত গ্রন্থে ধারাক্রমে ছিলো না। এবার সেই কাজটি করলেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ডঃ দীনেশ চন্দ্র ভট্টাচার্য।

কর্মসূত্রে বরানগরের সঙ্গে সম্পর্ক দীর্ঘদিনের। বিগত পাঁচ বছরেরও বেশি সময় ধরে এই বইটি সম্পাদনার কাজ করেছেন দীনেশবাবু। এই বইটি ঐতিহ্যমণ্ডিত বরানগর আত্মপ্রকাশ করল ২৪ আগস্ট। বইটিতে প্রচ্ছদ অলংকরণ আর ছবির দায়িত্ব সামলেছেন বিশিষ্ট সাংবাদিক রামকৃষ্ণ সিনহা।

 

প্রায় তিনশো বছরেরও ইতিহাস নথিবদ্ধ করার কাজটা মোটেও সহজ ছিলো না। বলছিলেন লেখক ও গবেষক দীনেশবাবু। তাঁর কথায় এই কাজ আগামী প্রজন্মকে বরানগরের ইতিহাসের গুরুত্ব বোঝাতে অনেকটাই সাহায্য করবে বলে জানিয়েছেন তিনি। অন্যদিকে, ছবির কাজ করতে গিয়ে সাংবাদিক রামকৃষ্ণ সিনহা বলছিলেন, পুরোনো বরানগরের ছবিটা গত কয়েক বছরে ব্যাপক বদলে গেছে। পুরোনো অনেক স্মৃতিসৌধই আমূল বদলে গেছে। পুরোনো বরানগরের প্রতি গলিতে যে প্রাচীন গন্ধ ছিলো, তাতে আধুনিকতার ছোঁয়া লেগেছে। বিশেষ করে কুটিঘাট, আলমবাজার, এসব অঞ্চলগুলি।