প্রতীকী ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: নৈহাটি পুরসভা তৃণমূল কাউন্সিলর সনৎ দে ও কাজল দের বাড়িতে গভীর রাতে বোমাবাজির অভিযোগ। চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর ২৪ পরগনার নৈহাটির ৬ নম্বর বিজয়নগর এলাকায়। ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে। সনৎ বাবু এবং তার স্ত্রী কাজল দেবী দুজনেই নৈহাটি পুরসভার শাসক দলের কাউন্সিলর । সনৎ দে ২১ নম্বর ওয়ার্ডের এবং তার স্ত্রী কাজল দেবী ২০ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কংগ্রেসের কাউন্সিলর বলে এলাকায় পরিচিত।

সোমবার রাতে অন্যান্য দিনের মতোই সপরিবারে সনৎ বাবুরা ঘুমিয়ে ছিলেন । হঠাতই তার বাড়িতে গভীর রাতে দুষ্কৃতীরা এসে বোমাবাজি করে বলে অভিযোগ। নৈহাটি পুরসভার অধিকাংশ তৃণমূল কাউন্সিলর দল পরিবর্তন করে বিজেপিতে যোগদান করলেও সনৎ বাবু ও তার স্ত্রী তৃণমূল কংগ্রেস দল ছাড়েননি । সনৎ বাবু জানিয়েছেন, “নৈহাটি এলাকায় তৃণমূল করার অপরাধে বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা এসে আমার বাড়িতে বোমাবাজি করেছে । কয়েকদিন আগে ওরা আমার ছেলেকে এবং স্ত্রীকে ও মারধর করেছিল । আমি নৈহাটি থানার পুলিশকে গোটা বিষয়টি জানিয়েছি। পুলিশ এসে তদন্ত শুরু করেছে।”

যদিও বিজেপি এই বোমা মারার ঘটনার অভিযোগ সম্পূর্ণ অস্বীকার করেছে । বারাকপুর সাংগঠনিক জেলার সভানেত্রী ফাল্গুনী পাত্র বলেন, “বিজেপিতে এখনও কোন দুষ্কৃতী যোগদান করেনি । তৃণমূল কংগ্রেসের গোষ্ঠী কোন্দলের কারনে এই ঘটনা ঘটতে পারে। পুলিশ যাকে এই ঘটনায় জড়িত সন্দেহে গ্রেফতার করেছে, সেই নামে আমাদের দলে কেউ নেই । ওদের নিজেদের গন্ডগোল বিজেপির নামে চালাতে চাইছে ।”

নৈহাটির ওই তৃণমূল নেতার বাড়িতে বোমা মারার ঘটনায় নৈহাটি থানার পুলিশ বান্টি সরকার নামে এক দুষ্কৃতীকে গ্রেফতার করেছে । এই ঘটনায় নৈহাটি এলাকায় তৃণমূল ও বিজেপির মধ্যে রাজনৈতিক চাপানউতর শুরু হয়েছে । নৈহাটি থানার পুলিশ গোটা ঘটনার তদন্তে নেমেছে।