সৌপ্তিক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতাঃ তিনি যা বলেছিলেন আগ বাড়িয়ে বেশি কিছুই হল। নরেন্দ্র মোদী বলেছিলেন, শুধুমাত্র আলো নিভিয়ে দীপ জ্বালাতে। কিন্তু পটকা ফাটিয়ে সেলিব্রেশন? কেন, কি জন্য বোঝা দায়! তবু হল। শব্দ বাজির দাপট, ৯ মিনিট নয় অন্তত মিনিট কুড়ি ধরে বোঝা দায় করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে ভারত লড়ছে নাকি ভিক্ট্রি ল্যাপ দিচ্ছে।

মিলল আগের দিনের মতোই রাস্তায় বেরিয়ে আলো জ্বালানোর ছবিও। সারা দেশের চিত্র এটাই। এ কেমন দৃশ্য? নির্বাচনে আসনের বিচারে মেজরিটি আছে দেশে, তা ভালো কথা। কিন্তু তা বলে এমনভাবে সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রদর্শন বোধহয় নরেন্দ্র মোদীও চান না। তিনি এক বললে করোনা ভাইরাসের কঠিন লড়াইকে ভুলে গিয়ে মানুষকে ৪ বলছে। শুধু চার হলেও বাঁচোয়া ছিল।

এক্কেবারে চার ছক্কা হৈ হৈ , বল পলাইয়া গেল কই? নরেন্দ্র মোদী এর আগের বার বলেছিলেন ঘরে, ব্যালকনিতে এসে তালি, থালি বাজিয়ে চিকিৎসক ও বিশেষ পরিষেবা দেওয়া ব্যক্তিদের প্রতি অভিবাদন জানানোর জন্য। কি হয়েছিল সেবার? রাস্তায় ঢোল , তাসা, ডিজে, শাঁখ টু ঢাক বাজিয়ে করোনা পুজো হয়েছিল। এবার তিনি বললেন, দেশ এক হয়ে লড়ছে সেই উদ্দেশ্যে দেশবাসী যেন ঘরে থেকে ‘দীপ জ্বেলে যাই’ অনুষ্ঠান পালন করেন। কি হল? দুমদারাক্কা শব্দবাজি। মিনিট কুড়ি ধরে শব্দবাজির দাপট দেখা গেল। এত কেন বাজি? কোথা থেকেই বা এল এত শব্দবাজি সেই প্ৰশ্নও উঠেছে, কারন কালীপুজোয় জমানো ভুটো বাজি এত শব্দ করে ফাটা সম্ভব নয়। তবে কী আগাম খবর ছিল বাজি ফাটানো

মানুষদের কাছে, যে মোদী বলবেন আর তারা ফাটাবেন। করোনা লড়াই নয়, গ্রাম থেকে শহর সর্বত্র হল করোনা সেলিব্রেশন। অনেকে বলছেন ঘরে বসে বিরক্ত হয়ে যাওয়া মানুষ বাজি ফাটিয়ে স্ট্রেস আউট করছেন মানুষ। কিন্তু প্রশ্ন উঠছে এতোটাও কি প্রয়োজন ছিল? বারবার বলার পরেও ঘর থেকে বেরিয়ে করোনা মোচ্ছব পালনের ছবিও মিলছে। ২২ মার্চ জনতা কার্ফুতে অভূতপূর্ব সাড়ার পর আলো নিভিয়ে প্রদীপ জ্বালানোর আহ্বান করেন প্রধানমন্ত্রী। নতুন অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করবে ১৩০ কোটি ভারতবাসী ভেবেছিলেন প্রধানমন্ত্রী।

শুক্রবার সকালে জাতির উদ্দেশে ভিডিও বার্তায় প্রধানমন্ত্রীর অনুরোধ ছিল রবিবার রাত নটায় নয় মিনিটের জন্য বাড়ির আলো বন্ধ রেখে প্রদীপ কিংবা মোবাইলের আলো জ্বালান। রবিবার বিকেলে করোনা বিরুদ্ধে লড়াই নিয়ে টুইটও করেন প্রধানমন্ত্রী।

সেখানে তিনি লেখেন, কোভিড-১৯-এর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সংঘবদ্ধ গোটা দেশ। পাশাপাশি যাঁরা সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানের প্রশংসা করেছেন, তাঁদের তিনি অভিনন্দন জানিয়েছেন। পাশাপাশি তিনি এদিনের সময়ের কথাও স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন। মোদীর বার্তা পূরণে যে অতি উৎসুক ভারতবাসী যে তাঁর মাথা আবারও হেঁট করিয়ে দিল তা বলা যেতেই পারে ।