গুগল থেকে প্রাপ্ত ছবি ( ফাইল)

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: পরিবেশ দফতরের পূর্ব কলকাতার জলাভূমি সংরক্ষণ কমিটি থেকে ইস্তফা দিলেন অধ্যাপিকা বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ তিনি মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়ের বিশেষ বন্ধু হিসেবেও পরিচিত ৷ সম্প্রতি দুজনের সম্পর্ক নিয়ে রাজনৈতিক মহলে জলঘোলাও কম হয়নি ৷

তবে হঠাৎ করে কেন ইস্তফা তা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন? শোভনের হাত থেকে এই দফতর সরে যেতেই কি বৈশাখীকে সরানো হল?এই প্রশ্নও উঠছে?

প্রসঙ্গত, মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়ের অধীনেই এতদিন ছিল পরিবেশ দফতর ৷ শোভনের ডানা ছেটে সম্প্রতি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পরিবেশ দফতরের বাড়তি দায়িত্ব দিয়েছেন শুভেন্দু অধিকারীর হাতে ৷ তার ঠিক পরেই পরিবেশ দফতরের অধীনস্থ এই জলাভূমি সংরক্ষণ এই কমিটি থেকে মেয়রের বিশেষ বন্ধুর ইস্তফা ৷ তবে কি বন্ধুর জন্যই এই স্বার্থত্যাগ ? নাকি অন্য কোনও কারণ ? যদিও বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের থেকে তার কোনও সদুত্তর মেলেনি ৷

সম্প্রতি দুজনের সম্পর্ক জানাজানি হতেই মেয়রের জীবনে নান সমস্যার কারণ হয়ে দাড়ান এই বৈশাখীই ৷ যদিও তাতে তাদের সম্পর্কে কোনও ছেদ পড়েনি ৷ দুজনে দুজনের পাশেই ছিলেন এবং আছেন বলে বারবার দাবি করেছেন শোভন-বৈশাখী দুজনেই৷ জীবনে সমস্যা আসলেও দুজনেই দুজনের পাশে থাকার আশ্বাসও দিয়েছিলেন ৷ এখন প্রশ্ন হল, ইস্তফা দিয়ে সেই পাশে থাকার কথাই কি রাখলেন মেয়রের বিশেষ বন্ধু বৈশাখী? মেয়রের হাতে পরিবেশ দফতর না থাকাতেই তার ইস্তফা কিনা সে বিষয়ে নিয়ে যদিও এখনও পর্যন্ত মুখ খোলেননি দুপক্ষই ৷ যদিও রাজনৈতিক মহলে একাংশ বলছেন বন্ধুর জন্যই অধ্যাপিকা বান্ধবীর এই স্বার্থত্যাগ!