স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মসমিতি থেকে সরকারি প্রতিনিধি হিসেবে বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্বামী, অধ্যাপক মনজিত মণ্ডলকে সরিয়ে দেওয়া হল। রবিবার সাংবাদিকদের একথা জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়।কয়েকদিন আগে ঘনিষ্ট বন্ধু শোভন চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন অধ্যাপিকা বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়।

তার জেরেই মনোজিতের পদ গেল বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল। কারণ শোভন চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে বৈশাখী বন্দোপাধ্যায়ের সম্পর্ক নিয়ে যখন বহু বিতর্ক হয়েছে যখন আগাগোড়া স্বামী হিসেবে স্ত্রীর পাশেই দাঁড়িয়েছেন যাদবপুরের ইংরাজির অধ্যাপক মনোজিত।

সেই সময় তিনি বলেছিলেন, ‘‘আমার স্ত্রী পলিটিক্যাল সায়েন্সের ছাত্রী৷ সংবিধানটা ও খুব ভালো জানে৷ আর ওর ইংরেজি ভাষার উপর দখল বেশ ভালো৷ ইংরেজি ভাষার উপর শোভন চট্টোপাধ্যায়ের অতটা দখল নেই৷ আমার স্ত্রী ওনাকে ইংরেজি ভাষা নিয়ে অনেক সাহায্য করেছেন৷ আমার স্ত্রীর সঙ্গে আইনি ব্যাপারেও উনি অনেক আলোচনা করেন৷’’

কয়েকদিন আগে শিক্ষা মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে হেনস্থার অভিযোগ করেছিলেন মিল্লি অল আমিন কলেজের অধ্যাপিকা বৈশাখী বন্দোপাধ্যায়। তার পরই তিনি বিজেপিতে চলে যান। কিন্তু এতকিছুর পরও স্ত্রীর বিরুদ্ধে মুখ খোলেননি তৃণমূলের থেকে সরকারি পদ পাওয়া অধ্যাপক মনোজিত মন্ডল। পর্যবেক্ষকরা মনে করছেন, এটাকে ভালোভাবে নেয়নি তৃণমূল নেতৃত্ব। সেকারণেই তাঁকে সরতে হল।