ঢাকা: ভয়াবহ নাশকতায় শ্রীলঙ্কায় ক্রমে বাড়ছে নিহতের সংখ্যা৷ তিনশোর বেশি মানুষের মৃত্যুর ঘটনায় স্তম্ভিত দুনিয়া৷ এই বিস্ফোরণে মৃত ছোট্ট জায়ান বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘনিষ্ঠ আত্মীয় তথা নাতি৷ জায়ানের মরদেহ সমাধিস্থ করা হল ঢাকার বনানী কবরস্থানে৷ ঘটনার সময় ব্রুনেই সফরে ছিলেন শেখ হাসিনা৷ দেশে ফিরে তিনি ভেঙে শোকে ভেঙে পড়েন৷ নাশকতায় জায়ানের মৃত্যুর ঘটনায় নড়ে গিয়েছে বাংলাদেশ৷

মৃত জায়ান চৌধুরী আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিমের নাতি৷ ফজলুল করিমের সঙ্গে শেখ হাসিনার ঘনিষ্ঠ আত্মীয়তা রয়েছে৷ সম্পর্কে তিনি শেখ হাসিনার ভাই৷ বোমা হামলায় নিহত আট বছরের জায়ানের মরদেহ বহনকারী শ্রীলংকান এয়ারলাইন্সের ইউএল-১৮৯ ফ্লাইটটি বুধবার ঢাকার হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে। ঢাকার বিমানবন্দরে নাতি জায়ানের মরদেহ গ্রহণ করে তার পরিবার৷ জায়ানকে শেষবারের মতো দেখতে উপস্থিত হন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সপরিবারে শ্রীলংকা বেড়াতে গিয়েছিল জায়ান৷ রবিবার কলম্বো ও শ্রীলঙ্কার বিভিন্ন স্থানে ধারাবাহিক বিস্ফোরণ হয়৷ এই নাশকতায় নিহতদের তালিকায় উঠে আসে জায়ানের নাম৷ তার বাবা মশিউল হক চৌধুরী প্রিন্স আহত হয়ে স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

জঙ্গিদের টার্গেটের অন্যতম কলম্বোর সাংগ্রি লা হোটেল৷ সেই হোটেলেই ছিলেন শেখ হাসিনার আত্মীয়রা৷ ঘটনার সময় হোটেলের রেস্তোরাঁয় ছিলেন তাঁরা৷ সেখানেই বিস্ফোরণ ঘটানো হয়৷ সেই সময় হোটেলের রুমে থাকায় বেঁচে গেছেন জায়ানের মা শেখ আমেনা সুলতানা সোনিয়া ও ছোট ভাই দেড় বছর বয়সী জোহান চৌধুরী।

পুত্রের মৃতদেহ বাংলাদেশে ফিরলেও স্বামীর চিকিৎসার জন্য ফিরতে পারেননি জায়ানের মা আমেনা সুলতানা সোনিয়া৷