বিজয়ানগরম: সীমিত ওভারের ক্রিকেটে ধারাবাহিকতা নিয়ে প্রশ্ন তোলার জায়গা নেই৷ তবে টেস্ট দলের প্রথম একাদশে নিজেকে নিয়মিত করে তুলতে পারেননি কখনই৷ টেস্ট কেরিয়ারের শুরুটা করেছিলেন দারুণভাবে৷ পরে টেস্টে টিম ইন্ডিয়ার মিডল অর্ডারের ট্রাফিক জ্যামে আটকে রিজার্ভ বেঞ্চই কার্যত স্থায়ী জায়গা হয়েছে রোহিত শর্মার৷ নির্ভরযোগ্য পূজারা-রাহানেদের সঙ্গে নবাগত হনুমা বিহারী ইতিমধ্যেই নিজেকে অপরিহার্য করে তোলায় কম্বিনেশনের স্বার্থে আপাতত রোহিতকে মিডল অর্ডারে খেলানো সম্ভব নয়৷

আরও পড়ুন: টি-২০ র‍্যাংকিংয়ে উন্নতি কোহলি-ধাওয়ানের

টিম ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে জাতীয় নির্বাচকরাও একযোগে সুযোগ খুঁজছিলেন রোহিতকে কোনওভাবে টেস্ট দলের প্রথম একাদশে জায়গা করে দেওয়ার৷ শিখর ধাওয়ানের পর ওপেনে লোকেশ রাহুল ফর্ম হারানোয় সুযোগ এসে যায় গোড়াপত্তনকারী ব্যাটসম্যান হিসাবে রোহিতকে টেস্টে মাঠে নামানোর৷ প্রথম সুযোগেই লোকেশকে ছেঁটে ওপেনার হিসাবে রোহিতের নাম ঘোষণা করে দেন এমএসকে প্রসাদরা৷ সঙ্গী হিসাবে মায়াঙ্ক আগরওয়াল আগে থেকেই নির্ধারিত ছিলেন৷

আরও পড়ুন: জিম্বাবোয়ের পরিবর্তে নতুন বছরের শুরুতেই ভারত সফরে শ্রীলঙ্কা

দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে দু’ম্যাচের টেস্ট সিরিজে ওপেনার হিসাবে মাঠে নামার আগে নির্বাচকরা রোহিতকে ওপেনার হিসাবে সড়গড় হওয়ার সুযোগও করে দিয়েছেন৷ মায়াঙ্কের সঙ্গে রোহিতের নতুন ওপেনিং জুটি বোর্ড সভাপতি একাদশের হয়ে প্রোটিয়াদের বিরুদ্ধে প্রস্তুতি ম্যাচে ট্রায়ালে নামছে৷ তিন দিনের এই প্রস্তুতি ম্যাচ স্বাভাবিকভাবেই রোহিতের কাছে বাড়তি গুরুত্ব পাচ্ছে৷

আরও পড়ুন: সেন্ট পিটার্সবার্গ, মিউনিখ ও লন্ডন পেল চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালের দায়িত্ব

মায়াঙ্ক আগরওয়ালের কাছেও তিন দিনের এই ট্যুর ম্যাচ বাড়তি মাত্রা পাচ্ছে রোহিতের সঙ্গে বোঝাপড়া তৈরির জন্য৷ এছাড়া জসপ্রীত বুমরাহর জায়গায় টেস্ট দলে ঢুকে পড়া উমেশ যাদবও আন্তর্জাতিক আবহে পুনরায় মানিয়ে নেওয়ার জন্য ব্যবহার করতে চাইবেন এই ট্যুর ম্যাচটিকে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।