ঢাকা:  ১৪ আগস্ট রাত ১২টা ১ বেজে গেলেই (অর্থাৎ ১৫ আগস্ট) নেতা-কর্মী পরিবেষ্টিত হয়ে কেক কেটে জন্মদিন উদযাপন করেন বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া। এই রেওয়াজ শুরু হয়েছিল ১৯৯৬ সালে, বিএনপি বিরোধী দলে যাওয়ার পর থেকে। এবার হঠাৎ এই উদযাপনে ছন্দ পতন হয়েছে। এই প্রথমবার ১৫ আগস্টে কেক কাটেননি খালেদা। তবে খালেদা জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে শনিবার দলের মহিলা কর্মীরা কেক কাটবে বলে সে দেশের এক শীর্ষ স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন মহিলা শাখার সাধারণ সম্পাদক শিরিন সুলতানা।

বিএনপির দলীয় সূত্রের খবর, শনিবার রাতে গুলশান কার্যালয়ে জন্মদিনের কেক কাটতে পারেন খালেদা জিয়া। অন্যদিকে বিএনপির আর একটি সূত্র জানিয়েছে, বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান ও বড় ছেলে তারেক রহমান খালেদা জিয়াকে ফোন করে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। এ সময় তারেক রহমানের সন্তানেরা দিদা খালেদা জিয়ার সঙ্গে কথা বলে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানায়।

১৯৯১ সালে বিএনপি সরকারের গঠনের পর ১৯৯৩ সাল থেকে ১৫ আগস্ট খালেদা জিয়ার জন্মদিন পালনের রেওয়াজ চালু হয়। তবে তা ছিল ঘরোয়াভাবে ও অনাড়ম্বরভাবে। বিএনপি ক্ষমতা হারিয়ে বিরোধী দলে যাওয়ার পর ১৯৯৬ সাল থেকে এ দিনটিতে কেক কেটে জন্মদিন পালন শুরু হয়। ১৯৯৬ সালের ১৫ আগস্ট তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেত্রীয় মিন্টু রোডের সরকারি বাসভবনে খালেদা জিয়া প্রথমবারের মতো নেতা-কর্মীদের নিয়ে কেক কেটে জন্মদিন পালন করা শুরু করেন। সেসময়ের একজন যুব নেতা ও কয়েকজন বুদ্ধিজীবীর পরামর্শে এই আনুষ্ঠান শুরু হয়।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট সে দেশের স্বাধীনতার স্থপতি ও আওয়ামী লীগের তৎকালীন সভাপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সপরিবারে নিহত হন। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর দিনটিকে জাতীয় শোক দিবস ঘোষণা করা হয়। একই দিনে খালেদা জিয়ার জন্মদিন পালনের কঠোর সমালোচনা করে আসছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা-সহ আওয়ামী লীগের নেতারা। বিএনপির নেতাদের অনেকেও এই দিনে জন্মদিন পালন করা নিয়ে ভেতরে-ভেতরে অখুশি। ২০১৩ সালের ২৬ অক্টোবর জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টেলিফোন করেছিলেন তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী খালেদা জিয়াকে। এই টেলিফোন সংলাপের একপর্যায়ে শেখ হাসিনা ১৫ আগস্ট খালেদা জিয়ার জন্মদিন পালন নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। গত পয়লা আগস্ট জাতীয় শোক দিবসে খালেদা জিয়াকে আবারও জন্মদিন পালন না করার আহ্বান জানান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফ। তিনি বলেছিলেন, ১৫ আগস্ট যদি সত্যিকারের জন্মদিন হয়ে থাকে তাহলেও ১৬ বা ১৭ আগস্ট যেন খালেদা জিয়া জন্মদিন পালন করেন। এমন পরিস্থিতিতে এ বছর ১৫ আগস্ট কেক কাটা নিয়ে বিএনপির মধ্যেও ধোঁয়াশা ছিল। শেষ পর্যন্ত সব জল্পনা সত্যি করে কেক কাটলেন না সে দেশের প্রধান বিরোধী নেত্রী।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনাকালে বিনোদন দুনিয়ায় কী পরিবর্তন? জানাচ্ছেন, চলচ্চিত্র সমালোচক রত্নোত্তমা সেনগুপ্ত I