এমন মানুষ কমই আছেন যারা সাপে ভয় পান না। কম বেশি সকলেই সাপে ভয় পায়। যে ডাকাবুকো লোক নিজেকে দারুণ সাহসী বলে দাবি করেন, সেই তিনিও কুন্ডলী পাকানো সাপ দেখলে রীতিমতো ঘামতে শুরু করেন। তবে এও সত্যি পৃথিবীতে এমন অনেক সাপ আছে, যা দেখতে খুবই সুন্দর। এগুলি দেখতে এতই আকর্ষণীয়, যে আপনি রীতিমতো মোহিত হয়ে যাবেন। এক কথায় এগুলিকে ‘ভয়ংকর সুন্দর’ বললেও অত্যুক্তি করা হয় না।

সম্প্রতি এমনই একটি ছবি সামনে এসেছে যা দেখে রীতিমতো উচ্ছ্বসিত নেট নাগরিকেরা। ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে লাল রঙের গোলাপে বসে রয়েছে একটি নীল রঙের সুন্দর সাপ। আসলে এটা যতটা সুন্দর দেখতে ঠিক ততটাই বিপজ্জনক। কারণ এই সাপটি মারাত্মক বিষাক্ত।

 

এক টুইটার ব্যবহারকারী একটি ছোট্ট ভিডিও ক্লিপ শেয়ার করেছেন, যেখানে দেখা যাচ্ছে বিরল প্রজাতির নীল সাপ লাল গোলাপের উপরে বসে রয়েছে। ব্যাপারটা রঙের জন্য মারাত্মক দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে। একই সঙ্গে একদিকে গোলাপ যখন সবার প্রিয়, তেমনই সাপ ভয়ঙ্কর বিষাক্ত প্রাণী। এখানে সাপ ও গোলাপের মেলবন্ধনে রীতিমতো তাজ্জব হয়ে গিয়েছেন নেট নাগরিকেরা। সকলেই এই ভিডিও দেখে দারুণ প্রশংসাও করেছেন।

অস্ট্রেলিয়ান একটি ম্যাগাজিনে এই সাপ সম্পর্কে কিছু বিবরণ প্রকাশ করা হয়েছে। বলা হয়েছে এই সাপটি দেখতে খুবই সুন্দর। কিন্তু এটাকে ছোঁয়ার কথা ভাববেনও না। কারণ বাস্তবে এটি মারাত্মক আক্রমণাত্মক। যে কোনও বেগড়বাই দেখলে ছোবল মারতে এটি বিন্দুমাত্র দ্বিধা করে না। তাই সাবধান।

তবে আশ্চর্যের বিষয় হল টুইটার হ্যান্ডেলের ওই ভিডীওটি দেখা যাচ্ছে হাতে গোলাপের ডালটিকে নিয়ে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে ভিডিও করছেন ওই ব্যবহারকারী। এসময় সাপ্টি চেরা জিভ বেশ কয়েকবার বার করে ঠিকই, কিন্তু সৌভাগ্যক্রমে আক্রমণ করেনি ক্যামেরাধারীকে। সাপটি অবশ্য লম্বায়ও খুব বেশি না। এক হাত লম্বা হতে পারে সাপটি।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.