সৌপ্তিক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা : রক্তদান বন্ধ। করোনা কালে আরও সংকটে ওদের জীবন। ব্লাড ব্যাংক থেকে শুনতে হচ্ছে ডোনার নিয়ে আসুনের মতো কথা। করোনার ভয় আসতে চাইছেন না অনেক দাতাও। এগিয়ে এলেন ১২১ নম্বর ওয়ার্ডের দেবজিৎ বাবু এবং ওনার টিম।  ওঁরা জানাচ্ছেন , ‘রক্তের সম্পর্ক না হলেও রক্তই হতে চলেছে সম্পর্কের রাখি বন্ধন। কারও গ্রুপ এ, কারও নেগেটিভ, কারও গ্রুপ বি পজেটিভ। এই দাদারাই হবে ওদের ডোনার। সঙ্গে রাখির গিফট হিসাবে জীবনদায়ী ওষুধ।’

দেবজিতবাবুকে ফোন করলেই ঘরের দরজায় হাজির হয়ে যায় ডাক্তার বাবু এবং অ্যাম্বুলেন্স। সে করোনা রোগী হোক কিংবা থ্যালাসেমিয়ার মত অন্য রোগী। বিনা পয়সায় সমস্ত ব্যবস্থা করে দেন তিনি। সম্প্রতি সময়মতো রক্ত না পেয়ে মৃত্যু হয় থ্যালাসেমিয়া) আক্রান্ত এক তরুনীর। উলুবেড়িয়া সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতালের ঘটনা। প্রয়োজন ছিল শুধু এক বোতল “O” পজিটিভ গ্রুপের রক্তের। সময় মতো তা না পেয়েই করুণ পরিণতি হল এক তরুণীর। মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়লেন উলুবেড়িয়ার বাড়বেড়িয়ার নিশা ডাল।

দীর্ঘদিন ধরে থ্যালাসেমিয়ায় আক্রান্ত ছিলেন এই তরুণী। প্রতি মাসেই তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে রক্ত দিতে হত বলে জানান তাঁর প্রতিবেশীরা। জানা যায়, ছোটবেলা থেকে এই মারণ রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়েন নিশা। প্রতি মাসেই নিশাকে উলুবেড়িয়া সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল থেকে নিশা রক্ত দিতে হত। মায়ের মৃত্যুর পর বাবা মেয়ের সংসারে একমাত্র বাবাই তাঁর জীবনের জিয়নকাঠি হয়ে ওঠে। পেশায় গাড়ি চালক নিমাই ডালকে পেশার টানে বারবারই কলকাতায় ছুটে যেতে হত। ভাগ্যের পরিহাসে লকডাউনের জেরে সেই কলকাতাতেই আটকে পড়েন নিমাই ডাল। এরই মাঝে বুধবার রাতে হঠাৎ নিশা অসুস্থ হয়ে পড়ায় তার প্রতিবেশীরাই তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে যায়।

চিকিৎসকরা নিশার প্রতিবেশীদের “O” পজিটিভ গ্রুপের আনতে বলেন। কিন্তু ব্লাড ব্যাঙ্ক থেকে শুরু করে অনেক খোঁজাখুঁজি করেও রক্ত পাওয়া যায়নি। ডোনার জোগাড়ের চেষ্টাও ব্যর্থ হয়। এদিকে পরিস্থিতি অবনতি হতে শুরু করলে বুধবার রাতে আটটা নাগাদ মৃত্যু হয় নিশার। উলুবেড়িয়া সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের সুপার সুদীপ কাড়ার বলেন, “দুঃখজনক ঘটনা। নানা কারনে রক্তদান শিবির বন্ধ রয়েছে। ফলে রক্তের জোগান কম আছে। সব সময় সব গ্রুপের রক্ত পাওয়া যায়না।” তবে সুদীপবাবুর আক্ষেপ, “যদি তরুণীর পরিবারের লোকজন আমাকে বিষয়টা জানাতেন। তাহলে আমি অন্যত্র চেষ্টা করে দেখতাম।”

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও