বারাকপুর:  প্রবল বিস্ফোরণে কেঁপে উঠল নৈহাটি। বিস্ফোরণের তীব্রতা এতটাই ছিল যে গঙ্গার ওপারের ব্যাপক কম্পন অনুভূত হয়। আর প্রবল কম্পনে নৈহাটিতে একাধিক বাড়িতে ফাটল দেখা গিয়েছে, হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়েছে একের পর এক বাড়ির কাচের জানলা। শুধু নৈহাটিতেই নয়, চুঁচুড়াতেও একই অবস্থা।

অন্যদিকে বিস্ফোরণের পর একটি বাড়ির এক অংশ হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়েছে বলে জানা গিয়েছে। ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক উত্তেজনা তৈরি হয়েছে। যদিও ইতিমধ্যে বিস্ফোরণের ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্থদের জন্যে ক্ষতিপূরণের ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

স্থানীয় এক প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন, এদিন দুপুরে প্রবল শব্দে কেঁপে ওঠে এলাকা। শব্দের তীব্রতা এতটাই ছিল যে কান পাতা দায় হয়ে গিয়েছিল। ঘটনায় আহত এক মহিলা জানিয়েছেন, ঘরের মধ্যে বাচ্চা শুয়ে ছিল। বিস্ফোরণের পরেই বাড়ির একাংশ হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ে। বাচ্চার উপরেই একাংশ ভেঙে পড়ে বলে দাবি ওই মহিলার। এই ঘটনায় বাচ্চা সহ আরও আরও একজন গুরুতর আহত হয়েছেন বলে জানা যাচ্ছে। অন্যদিকে, নৈহাটি, চুঁচুড়াতে একের পর এক বাড়ির ছাদের চাল ভেঙে পড়েছে বলে জানা যাচ্ছে।

প্রসঙ্গত, নৈহাটির দেবক-সহ পার্শ্ববর্তী এলাকা থেকে গত কয়েকদিন ধরেই বিপুল প্রচুর পরিমাণ নিষিদ্ধ বাজি ও বারুদ বাজেয়াপ্ত করে পুলিশ৷ সেই বাজি ও বারুদ নিষ্ক্রিয় করতে গঙ্গার পাড়ে নৈহাটির রামঘাটে নিয়ে যায় পুলিশ৷ বাজি নিষ্ক্রিয় করতে গিয়েই ঘটে যায় বিপত্তি৷ বিস্ফোরণের প্রবল শব্দ কেঁপে ওঠে বিস্তীর্ণ এলাকা৷ এমনকী বিস্ফোরণের জেরে গঙ্গার ওপারেও চুঁচুড়ায় বহু বাড়ির কাচ ভেঙে যায়৷ এভাবে বাজি নিষ্ক্রিয় করার পদ্ধতিতে ক্ষোভে ফেটে পড়েন এলাকাবাসী৷ পুলিশের বিরুদ্ধে পথে নেমে শুরু হয় বিক্ষোভ৷ নৈহাটিতে পুলিশের দুটি গাড়িতে ভাঙচুর চালায় ক্ষুব্ধ বাসিন্দারা৷ ভাঙচুর চালিয়ে পুলিশের গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়৷ নৈহাটিতে পথ অবরোধ শুরু করে এলাকাবাসী৷

জনবহুল এলাকায় কীভাবে বোমা বা বাজি নিষ্ক্রিয় করতে পারে পুলিশ, তা নিয়েই প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা৷ গত ৩ জানুয়ারি নৈহাটির দেবকে একটি বাজি কারখানায় বিস্ফোরণ হয়৷ বিস্ফোরণের ঘটনায় ৪ জন নিহত হন৷ আরও বেশ কয়েকজন আহত হয়েছিলেন৷ বিস্ফোরণের তীব্রতায় কারখানার ছাদ উড়ে যায়৷ গোটা কারখানাটিতেই এরপর আগুন ধরে যায়। এরপরেই গোটা এলাকা জুড়ে ব্যাপক তল্লাশি অভিযান শুরু করে পুলিশ। এলাকার বিভিন্ন বাজি তৈরি কারখানায় অভিযান শুরু করে পুলিশ। আর সেখান থেকে প্রচুর পরিমাণে নিষিদ্ধ বাজি উদ্ধার হয় বলে জানা যাচ্ছে।