কলকাতা: দলের মুখ তিনি৷ তাঁকে সামনে রেখেই বাংলায় পাপড়ি মেলার চেষ্টায় বিজেপির বঙ্গ ব্রিগেড৷ রাজ্যের প্রথম তিন দফার নির্বাচনের আগে প্রচার সভাতেও ঝড় তুলেছেন প্রধানমন্ত্রী মোদী৷ যোগ্য সঙ্গ দিচ্ছেন দলের সর্বভারতীয় সাভাপতি অমিত শাহও৷ দক্ষিণবঙ্গে ভোট শুরুর আগে প্রচারের পালে হাওয়া দিতে মরিয়া মুরলীধর সেন লেনের নেতারা৷ তারা চাইছেন প্রচারের পাশাপাশি নরেন্দ্র মোদী ও অমিত শাহরা রোড শো করুক কলকাতায়৷

আরও পড়ুন: চাপ বাড়ছে মমতার, তৃণমূলের রেজিস্ট্রেশন বাতিলের দাবিতে কমিশনে মুকুল

ইতিমধ্যেই রোড শো-য়ের এই প্রস্তাব পৌঁছে গিয়েছে বিজেপির দিল্লির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছে৷ কিছুদিনের মধ্যেই দিনদয়াল উপাধ্যায় ভবন থেকে সম্মতি আসবে বলে আশাবাদী দিলীপ ঘোষ মুকুল রায়রা৷ রোড শোয়ের জন্য প্রস্তুতিও শুরু করে দিয়েছে বাংলার বিজেপি নেতারা৷

২০১৪’র পরিস্থিতির বদল হয়েছে৷ গো বলয় সহ উত্তরভারতে এবার ভোট কমতে পারে বিজেপির৷ কেন্দ্রীয় শাসক দলের নেতারাও বোঝেন তা৷ সেই ঘাটতি পূরণে এবার মোদী-শাহ জুটির পাখির চোখ পূর্ব ভারত৷ বিশেষ করে বাংলা৷ ইতিমধ্যেই পশ্চিমবঙ্গের ৪২ এর মধ্যে ২৩টার টার্গেটও বেঁধে দিয়েছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি৷ প্রধানমন্ত্রীর প্রচার সভাও ৬থেকে বাড়িয়ে ১৬ করা হয়েছে৷

কলকাতা থেকে জেলা, গেরুয়া দলের দলের বিভিন্ন সভাতে ভিড় হচ্ছে ভালোই৷ তাহলে হঠাৎ রোড শো’য়ের পরিকল্পনা কেন? রাজ্য বিজেপির এক শীর্ষ নেতার কথায়, উত্তরবঙ্গে ভোট হয়েছে মোটের উপর ভালোই৷ তৃণমূলের চোখে চোখ রেখে কথা বলতে পেরেছে বিজেপি৷ প্রথম তিন দফা থেকে বেশ কয়েকটি আসন জেতার সম্ভাবনা রয়েছে৷ দলের রাজ্য নেতারা মনে করছে মানুষের মনে ভরসা হয়ে উঠতে পারছে গেরুয়া পতাকা৷ সেই ভরসা বাড়াতে দক্ষিণবঙ্গে ভোটের আগে মেগা রোড শো করতে পারলে দলের প্রতি মানুষের আস্থা আরও বাড়তে পারে৷

এতো গেল ভোটারদের নিরিখে বিজেপির রাজ্য নেতাদের বিশ্লেষণ৷ তাদের নজরে অবশ্য রয়েছে সংগঠনের বিষয়টিও৷ মুরলীধর সেন লেনের নেতৃত্ব মনে করছে, বারংবার মোদী ও অমিত শাহ রাজ্যে সভা করায় দলের কর্মী, সমর্থকদের মধ্যে উৎসাহ উন্মাদনা বেড়াছে৷

আরও পড়ুন: আজই সম্ভবত বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন তৃণমূল বিধায়ক সুনীল

দক্ষিণবঙ্গে লোকসভা আসনের সংখ্যা বেশি৷ ভোট বাকি কলকাতা সহ কৃষ্ণনগর, রানাঘাট, কলকাতর দুটি কেন্দ্র সহ যাদবপুর, দমদম, বারাসত, বসিরহাট, জয়নগর, ডায়মন্ডহারবারে৷ এগুলির বেশ কয়েকটিতে জয় আসতে পারে৷ তাই প্রচারেও ঝড় তুলে দিতে হবে৷ মোদী শাহরা রোড শো করলে গেরুয়া দলের কর্মীদের উৎসাহ বেশ কয়েকগুণ বেড়ে যাবে৷ চমকে দেওয়া যাবে বিপক্ষ শিবিরকেও৷

তাই প্রচারের মাঝেও আপাতত রোড শোকে পাখির চোখ করছে বাংলার বিজেপি নেতারা৷