কলকাতা: সুপ্রিম কোর্টের রায়ে আপাতত ঘুরছে না বিজেপির রথের চাকা৷ সভা করেই সন্তুষ্ট থাকার কথা জানিয়ে দিয়েছে আদালত৷ তাহলে এখন কী উপায়? দলের কর্মসূচি ঠিক করতে বুধবার মুরলীধর সেন লেনে জরুরী বৈঠক করবেন রাজ্য বিজেপির নেতারা৷ সূত্রের খবর, থাকবেন দলের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বও৷

আরও পড়ুন: সুপ্রিম কোর্টে বিজেপির রথ থমকে যাওয়ায় খুশি কংগ্রেস

রথযাত্রার পর ব্রিগেডে সভা করে বাংলায় দলের শক্তির প্রমাণের অপেক্ষায় ছিলেন পদ্ম শিবিরের রাজ্য নেতারা৷ সে গুড়ে বালি৷ উলটে যাত্রার ফলে রাজ্যের বুকে হিংসা ছড়াতে পারে বলে তৃণমূল সরকারের দাবিকেই মান্যতা দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট৷ সূত্রের খবর, আপাতত ব্রিগেডে সভায় কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সায় নেই৷ তবে অস্তিত্বের প্রমাণ দিতে আদালতের নির্দেশে রাজ্যে বিভিন্ন জায়গায় সভা করবে গেরুয়া দলটি৷ কিছুদিন পর নির্বাচনের অঙ্গ হিসেবে হতে পারে ব্রিগেড৷

সুপ্রিম কোর্টের রায়ে রথযাত্রা এগোবে না৷ ব্রিগেড সভাতেও লাল সংকেত৷ ৷ কিন্তু রতের বিকল্প হিসাবে বেশ কিছু সভা করা হবে৷ এতেই অমিত শাহ, যোগী আদিত্যনাথদের এনে ভোট প্রস্তুতির আগে বাজি মাতের চেষ্টায় দিলীপ ঘোষ, রাহুল সিনহারা৷

আদালতের রথযাত্রা নির্দেশের পর মাথা নুয়েছে পদ্মফুলের৷ আইনী লড়াইয়ে হেরে রাজনৈতিকভাবেও ব্যাকফুটে তারা৷ অন্যদিকে ১৯শের ভোটে দলের নজরে বাংলা৷ তাই এই পরিস্থিতিতে বিষয়টিকে প্রকাশ্যে লঘু করে দেখিয়ে রথ বের হতে না পারার জন্য শাসক তৃণমূলকেই দায়ি করছে তারা৷ পুরো বিষয়টিকে ‘বিরোধীদের কণ্ঠ রোধে’র চেষ্টা বলে প্রচারে সচেষ্ট গেরুয়া শিবির৷

আরও পড়ুন: মমতার মুখে খাগড়ের নামেই অমঙ্গল দেখছেন সোমেনরা

বিজেপির জাতীয় কর্মসমিতির শেষে বিজেপি সভাপতি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষদের বলেছিলেন, কথা কম বলে কাজ করতে হবে৷ রথ বিপর্যয়ের পর কোন কৌশলে বাংলার বুকে পদ্ম ফুটবে তা বাতলাতে বুধবার অমিক শাহের সঙ্গে কথা হতে পারে৷ রথ বার করতে আদালতে গিয়ে নাকের বদলে মিলেছে নরুন৷ তাই ভোটের আগে দলের কর্মসূচির রোড ম্যাপ স্থির করতে আপাতত দিল্লিতেই ভরসা রাখছেন অধিকাংশ বিজেপি রাজ্য নেতারা৷