কলকাতা: হায়দরাবাদের পশু চিকিৎসককে ধর্ষণ করে পুড়িয়ে মারার ঘটনায় শুক্রবার ভোর রাতে চার অভিযুক্তকেই এনকাউন্টারে খতম করেছে তেলঙ্গানার সাইবারাবাদ পুলিশ। এর মাঝেই শুক্রবার একটি টুইট ঘিরে অস্বস্তিতে পড়েছেন কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। ‘মানবাধিকার মানুষের জন্য, এনকাউন্টারে নিহত ওই ‘মানুষখেকোদের’ জন্য নয়।’ বিজেপির কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা বাংলার সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়র টুইটার হ্যান্ডলে দুপুর ১টা বেজে ২ মিনিটে পোস্ট হয়েছিল এটা। কিন্তু ঘণ্টা আড়াই পরই নতুন টুইটে আগের সেই টুইট অস্বীকার করেন বাবুল।

কেন অস্বীকার করছেন, সেই বিষয়েও ব্যাখ্যা দিয়েছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। তিনি জানিয়েছেন, এটা আদৌ তাঁর লেখা নয়। পরের পোস্টে বাবুল সুপ্রিয় লেখেন, ‘আমার টিম এটা করেছে (অবিনাশ পাণ্ডে) এবং ওঁকে সঙ্গে সঙ্গেই বরখাস্ত করা হয়েছে’। নিজের সোশ্যাল মিডিয়া এ ভাবে টিম দিয়ে চালানোর জন্য ভুল স্বীকারও করেছেন তিনি। তবে তেলঙ্গানার এনকাউন্টার নিয়ে তাঁর বক্তব্যটা কী— অন্তত টুইটারে তা আর খোলশা করেননি বাবুল সুপ্রিয়।

শুক্রবার ভোররাতে তেলঙ্গানায় গণধর্ষণ করে পুড়িয়ে মারার ঘটনায় অভিযুক্ত চার জনের মৃত্যু হয় পুলিশের গুলিতে। সকালে সেই খবর ছড়িয়ে পড়তেই দেশ জুড়ে শুরু হয় হইচই। তেলঙ্গানা পুলিশের দাবি, ২৭ নভেম্বর রাতে চিকিত্সককে ধর্ষণের পর পুড়িয়ে মারা হয় যেখানে, সেখানেই ঘটনার পুনর্নির্মাণের জন্য আসামীদের নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। পুলিশের আরও দাবি, রিভলভার কেড়ে পুলিশকে আক্রমণের চেষ্টা করেছিল অভিযুক্তেরা, এবং সেই কারণেই আত্মরক্ষার্থে গুলি চালাতে হয়েছে, আর তাতেই মৃত্যু হয়েছে চার অভিযুক্তেরই।

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা