স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনের দ্বিতীয় দফার ভোট গ্রহণের দিনে মৃত্যু হল বিজেপি কর্মী অজয় রায়ের। ওই ঘটনার জেরে রণক্ষেত্র আকার নিল উত্তর ২৪ পরগনা জেলার বারাকপুর।

আরও পড়ুন- গণতন্ত্র উদ্ধার করতে বিমান হাইজ্যাক হয়েছিল বিশ্বের একমাত্র হিন্দুরাষ্ট্রে

জানা গিয়েছে, ২১ বছর বয়সী অজয় বাইকে করে বারাকপুর স্টেশন থেকে ঘোষপাড়া রোড ধরে উত্তর দিকে যাচ্ছিলেন। এমন সময়ে পুরনো দিশা চক্ষু হাসপাতালের কাছে একটি ৮১ নম্বর রুটের বাস তাঁকে পিছন থেকে ধাক্কা মারে।

আরও পড়ুন- গণতন্ত্র উদ্ধার করতে বিমান হাইজ্যাক হয়েছিল বিশ্বের একমাত্র হিন্দুরাষ্ট্রে

প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে, বাসের পিছনের চাকার পিষ্ট হয়ে যান অজয়বাবু। স্থানীয় বাসিন্দারা তাঁকে উদ্ধার করে বারাকপুরের বিএন বসু মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে যান। যদিও শেষরক্ষা হয়নি। সেখানে চিকিৎসকেরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

আরও পড়ুন- মৌসমের প্রচারসভায় উপচে পড়া ভিড়, বাবা-বাছা বলে সামলালেন মমতা

এরপরেই উত্তপ্ত হয়ে ওঠা বারাকপুর স্টেশন সংলগ্ন এলাকা। স্থানীয় বাসিন্দারা পথ অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করে। একের পর এক বাসে ভাঙাচুর চালানো হয়। চারটি বেসরকারি এবং দু’টি সরকারি বাসে ভাঙচুর চালানো হয়। যদিও অজয় রায়কে ধাক্কা দেওয়া সেই ঘাতক বাসের চালক অনেক আগেই ঘটনাস্থল থেকে চম্পট দিয়েছিল।

আরও পড়ুন- ভোট চলাকালীন আইইডি বিস্ফোরণ, এনকাউন্টারে মৃত দুই মাওবাদী

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ঘটনাস্থলে পৌঁছে ব্যাপক লাঠিচার্জ করে পুলিশ। উত্তপ্ত পরিস্থিতিতে বন্ধ হয়ে যায় সমস্ত দোকানপাঠ। বেশ কয়েকজন বিক্ষোভকারীকে গ্রেফতার করেছে টিটাগড় থানার পুলিশ। ঘণ্টা খানেক পরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। সমগ্র ঘটনার তদন্তে নেমেছে টিটাগড় থানার পুলিশ। এলাকায় শুরু হয়েছে পুলিশের টহল।