স্টাফ রিপোর্টার, রায়গঞ্জ: পুলিশি হেফাজতে ইটাহারের বিজেপি কর্মী অনুপ রায়ের মৃত্যু মামলায় তদন্তভার সিআইডি-র হাতে তুলে দেওয়ার নির্দেশ দিল রাজ্য সরকার। রায়গঞ্জ পুলিশ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জসপ্রীত সিং একথা জানিয়েছেন।

এদিকে, সিবিআই তদন্তের দাবি জানিয়েছেন নিহতের মা। প্রসঙ্গত, চলতি মাসের ২ তারিখ একটি ডাকাতির ঘটনার তদন্তের জন্য ইটাহারের দুর্লভপুর পঞ্চায়েতের নন্দনগ্রামের বাড়ি থেকে বাইশ বছরের অনুপ রায়কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ তুলে নিয়ে যায় রায়গঞ্জ থানায়।

ওইদিন সন্ধেয় পুলিশ হেফাজতেই অনুপের মৃত্যু হয়। রাত সাড়ে আটটা নাগাদ রায়গঞ্জ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে ময়নাতদন্ত হয়। কিন্তু মৃতের মা ও বিজেপি তরফে পুনরায় ময়নাতদন্তের দাবি জানান।

ইটাহার থানায় এবং রায়গঞ্জ পুলিশ সুপারের কাছে রায়গঞ্জ থানার পাঁচ পুলিশ অফিসারের বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ জানানো হয়। তদন্তকারী পুলিশের দায়ের করা অভিযোগের ভিত্তিতে শুক্রবার বিকালে রায়গঞ্জের জেলা মুখ্য বিচারবিভাগীয় আদালত পুনরায় ময়নাতদন্তের নির্দেশ দেন।

দ্বিতীয় ময়নাতদন্তে হাজির থাকা বিজেপি নেতা প্রদীপ সরকার জানিয়েছিলেন, “অনুপ রায়কে প্রথমে লোহার রড কিংবা ভারী জিনিস দিয়ে মারধর করা হয়। মাথায় ও পিছনে আঘাতের চিহ্ন মিলেছে। তারপর মৃত্যু নিশ্চিত করতে এলোপাথারি গুলি করা হয়। ময়নাতদন্তে হাতে ও বুকে এবং পশ্চাতে চারটি সেলাই মিলেছে। ওই সব জায়গায় গুলি করা হয়েছিল।

প্রথমবার ময়নাতদন্তে গুলির প্রমাণ লোপাট করতে তড়িঘড়ি ক্ষতস্থান সেলাই করা হয়েছিল। কারণ, ময়নাতদন্তে পিছনে বা হাতে সেলাই থাকার কথা নয়। পরিষ্কার গুলি করে হত্যা করা হয়েছে।” মৃত অনুপের মায়ের অভিযোগের ভিত্তিতে অনুপের মৃত্যুর ২ দিন পর খুনের মামলা শুরু করে তদন্ত শুরু করে ইটাহার থানার পুলিশ। শুক্রবার এই মামলায় সিআইডি তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে রাজ্য সরকার।

রায়গঞ্জ জেলা পুলিশের হাত থেকে এই মামলা এখন বুঝে নিয়ে তদন্তভার এগিয়ে নিয়ে যাবে সিআইডি। কিন্তু সিআইডি তদন্তে আস্থা নেই পরিবারের লোকেদের। সিবিআই তদন্তের দাবি তুলেছেন তাঁরা। সিআইডি তদন্তের নির্দেশে খুশি হয়নি উত্তর দিনাজপুর জেলা বিজেপি।

জেলার বিজেপি সভাপতি বিশ্বজিৎ লাহিড়ি বলেন, “রাজ্য সরকার সিবিআই তদন্তের দাবি থেকে নজর ঘোরানোর জন্যই সিআইডি তদন্তের নির্দেশ দেয়। দাড়িভিট, হেমতাবাদ-কাণ্ডে আমরা তা দেখেছি। সেই তদন্তের আজও কোনও ফলাফল আসেনি।”

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।