স্টাফ রিপোর্টার, সিউড়ি: ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠল বীরভূমের নানুর ও সাঁইথিয়া। বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের সভায় যাওয়ার সময় গুলিবিদ্ধ হলেন দুই বিজেপি কর্মী। ঘটনায় অভিযুক্ত তৃণমূল।

বুধবার সিউড়ি জেলা স্কুল মাঠে রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষের সভা ছিল। জেলার বিভিন্ন জায়গা থেকে ওই সভায় আসছিলেন বিজেপি কর্মীরা।

গেরুয়া শিবিরের অভিযোগ, নানুরের শিমুলিয়া গ্রামে তাদের সভায় যেতে বাধা দেয় তৃণমূল। দলের কর্মী-সমর্থদের গাড়ি ঘিরে বোমাবাজি ও গুলি চালানো হয় বলেও অভিযোগ। ওই সময়ই গুলিবিদ্ধ হয়েছেন দুই বিজেপি কর্মী। পাঁজরে গুলি নিয়ে তাঁদের ভরতি করা হয়েছে স্থানীয় সিয়ান হাসপাতালে।

খয়রাশোল-শিমুলিয়ায় রাস্তার উপর বিজেপি কর্মীদের বেশ কয়েকটি বাস আটকে দেওয়া হয় বলেও অভিযোগ। একই রকম ঘটনা ঘটে সাঁইথিয়ার ভ্রমরকল গ্রামে। বিজেপির অভিযোগে, সেখান থেকেও দলের সমর্থকরা দিলীপ ঘোষের সভায় আসছিলেন। ভ্রমরকলে তাদের বাধা দেওয়া হয়।

এর প্রতিবাদে রাস্তায় তির ধনুক নিয়ে বসে পড়েছেন বিজেপি সমর্থকরা। এলাকায় প্রবল উত্তেজনা রয়েছে। এদিকে স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

জেলা তৃণমূলের কো-অর্ডিনেটর অভিজিৎ সিংহের বক্তব্য, ”এর সঙ্গে তৃণমূলের কোনও যোগ নেই। গোটাটাই বিজেপির গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব। পুলিশ তদন্ত করুক। অভিযুক্তরা ধরা পড়লেই সবটা স্পষ্ট হবে।”

বুধবার সিউড়িতে চা চক্রে অংশ নেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। সেখানে তিনি বলেন, রাজ্যের সবথেকে উপদ্রুত জেলা হল বীরভূম। এখানে পার্টি অফিসে ঝুড়ি ঝুড়ি বোমা পাওয়া যায়। পার্টির নেতারা বাথরুমের মধ্যে বস্তায় করে বোমা রেখে দেয়।

দিলীপ ঘোষের কথায়, রাজ্যের সর্বত্রই জঙ্গিরা জাল বুনে রেখে দিয়েছে। আক্ষরিক অর্থেই পশ্চিমবঙ্গ হয়ে উঠেছে দ্বিতীয় কাশ্মীর।কাশ্মীরেও এত জঙ্গি ধরা পড়ে না, যতটা ধরা পড়ছে এ কাজে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।