স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: কালীঘাটে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়ি অভিযান কর্মসূচি নিতে চলেছে বিজেপি৷ বিজেপি যুবমোর্চা আগামী ২ বা ৩ জুলাই এই কর্মসূচি নিতে চলেছে৷ তবে এই বিষয়ে রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের মতামতের অপেক্ষা রয়েছে বিজেপি নেতৃত্ব৷

মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ি অভিযানের মূল কর্মসূচি বর্তমানে প্রসঙ্গিক ইস্যু কাটমানি বিষয়ে৷ রাজ্যের সাধারণ সম্পাদক রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়ের বক্তব্য, সারা রাজ্যজুড়ে কাটমানির বিরুদ্ধে আন্দোলন হবে৷ তবে বিজেপি মনে করছে, ৭৫ শতাংশ কাটমানি তো কালীঘাটে-ই রয়েছে৷ অতএব মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ি অভিযান হবে৷

বিজেপি যুব মোর্চা এই অভিযানের মূল উদ্যোক্তা৷ যুব মোর্চার সভাপতি দেবজিৎ সরকার বলেন, ‘‘আমরা হাজরায় জমায়েত করব৷ দেখি অনুমতি পাই কিনা৷ এরপর মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ির দিকে এগোব৷’’ গতবছর, বিজেপি এর আগে হাজরায় বেশ কয়েকবার রাজনৈতিক কর্মসূচি করেছে৷ কেওড়াতলা মহাশ্মশানে শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের মূর্তিকে দুধ-স্নান করাতে গিয়েছিলেন কিছু বিজেপি নেতা৷ সেখানে বেশ হামলা হয়৷ ধুন্ধুমার কাণ্ড ঘটে৷ কিন্তু সাম্প্রতিককালে, বিজেপির কোনও কর্মসূচিই মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ি মুখো ছিল না৷

কাটমানি নিয়ে জেলার বিভিন্ন জায়গায় ভুক্তভোদীদের মনে সাহস যোগানোর কাজ শুরু করেছে বিজেপি৷ বিজেপি যুবমোর্চা ভুক্তভোগীদের আইনি সাহায্যও দিতে চায়৷ ইতিমধ্যে রাজ্য বিজেপির সভাপতি তথা মেদিনীপুরের সাংসদ দিলীপ ঘোষ কাটমানির বিষয়টি সংসদে তুলেছেন৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.