স্টাফ রিপোর্টার, মালদহ: করোনা সংক্রমনের জেরে দেশ জুড়ে চলছে লকডাউন। এই পরিস্থিতিতে রাজ্য সরকার বিনামূল্যে রেশন ব্যবস্থা চালু করলেও সেই রেশন ব্যবস্থায় স্বচ্ছতা নেই।

আর এই স্বচ্ছ রেশন ব্যবস্থা ও বিদ্যুৎ বিল মুকুবের প্রতিবাদে জাতীয় সড়কে বিজেপি সাংসদের মৌন ধর্ণা।

মঙ্গলবার পুরাতন মালদহ ব্লকের সামনে ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে প্রতিবাদ করেন তিনি। পাশাপাশি সাংসদ খগেন মুর্মু আরও দাবি করে বলেন,”গরিব মানুষ খাবার পাচ্ছে না আর রাজ্য সরকার মদের দোকান খুলে দিয়েছে। এতে সমস্যা আরও বাড়বে।”

করোনা সংক্রমনের জেরে দেশজুড়ে চলছে লকডাউন। ইতিমধ্যেই লকডাউন মাসখানেক পার হয়েছে। ফলে গরিব মানুষ রুজি-রোজগার হীন হয়ে পড়েছে। এই জরুরি পরিস্থিতিতে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে বিনামূল্যে রেশন সামগ্রী দেওয়ার কথা ঘোষণা করা হয়। সেইমতো রেশন সামগ্রী বন্টনের ও কাজ শুরু হয়। কোথাও বা কার্ডের সমস্যা আবার কোথাও রেশন কম দেওয়ার অভিযোগ উঠে আসছে।

সম্প্রতি এমনই ঘটনা ঘিরে মালদহ জেলার ইংলিশ বাজার রতুয়া সুজাপুর বৈষ্ণবনগর সহ একাধিক জায়গায় গ্রামবাসীরা অভিযোগ করতে। আবার কোথাও দেখা যায় ডিলারের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে দোকান ঘিরে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন গ্রামবাসীরা।

ইতিমধ্যেই কয়েকবার রেশন ব্যবস্থার স্বচ্ছতা ও সঠিকভাবে বন্টনের দাবি নিয়ে জেলাশাসকের দ্বারস্থ হয়েছিলেন উত্তর মালদহের সাংসদ খগেন মুর্মু। কিন্তু তা সত্বেও দেখা গিয়েছে রেশন ব্যবস্থায় স্বচ্ছতা আনা হচ্ছে না রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে।

আর এরপরই মঙ্গলবার উত্তর মালদহের সাংসদ খগেন মুর্মু রেশন ব্যবস্থায় স্বচ্ছতা ও বর্তমান পরিস্থিতিতে বিদ্যুৎ বিল নিয়ে মৌন প্রতিবাদ জানান। এদিন তিনি জাতীয় সড়কে বসেই এই মৌন ও প্রতিবাদ জানান।

এদিন তিনি বলেন,”আমরা আজকে সারা পশ্চিমবঙ্গ ব্যাপী তৃণমূল পরিচালিত আমাদের রাজ্য সরকার ভারতীয় জনতা পার্টির কার্যকর্তাদের অকারনে হয়রানি ও মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে। রেশনে যে দুর্নীতি হচ্ছে মানুষ রেশন পাচ্ছিনা। এদিন আমরা স্বচ্ছ রেশন ব্যবস্থা চালুর প্রতিবাদে নীরব প্রতিবাদ করছি।

রেশনের সামগ্রী চুরি হচ্ছে, রেশন দেওয়া হচ্ছে না,গরিব মানুষকে লকডাউন পরিস্থিতিতে থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে। পাশাপাশি আমরা দাবি রাখছি, বিদ্যুৎ বিল মুকুবের। এই লকডাউন পরিস্থিতিতে মানুষের হাতে পয়সা নেই। তাদের আজকে রোজকার বন্ধ। তাই অন্ততপক্ষে তিনমাস বিদ্যুৎ বিল মুকুব করা হোক। এই দাবিতে রাজ্যজুড়ে বিজেপির পক্ষ থেকে নিরব আন্দোলন করা হচ্ছে।”

তিনি এও বলেন, “রাজ্য সরকার গরীব মানুষের খাদ্যের যোগান দিতে ব্যর্থ। রাজ্যের গরীব মানুষ খেতে পাচ্ছেন না। তাদের জন্য খাদ্য পৌঁছনোর কোনও উদ্যোগই নেই রাজ্য সরকারের।করোনার বিরুদ্ধে ভারতবর্ষের মানুষ লড়াই করছে। সেখানে আমাদের পশ্চিমবঙ্গের মানুষের লড়াই করছে মদ কেনার জন্য। তাও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা হচ্ছে না। এই সময় করোনা যে মহামারী সর্বস্বান্ত করতে পারে। সেখানে আমরা এর বিরুদ্ধে লড়াই করছি কিন্তু রাজ্য সরকারের কোনও হেলদোল নেই।”

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV