কলকাতাঃ  রাজ্যে আর কোনও বিজয় মিছিল হবে না। নিমতায় তৃণমূল কংগ্রেস কর্মী নির্মল কুণ্ডু খুনের ঘটনার পর এদিন তাঁর পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পরিবারের সঙ্গে দেখা করে বেরিয়ে এসে এমনটাই নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই বিষয়ে পুলিশকেও বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্যে নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী। আর তাঁর এই হুশিয়ারির ২৪ ঘন্টাও কাটল না। রাজ্যের একাধিক জায়গায় বিজয় মিছিল বার করল বঙ্গ বিজেপি শিবির। কোথায় দেখা গেল বিজেপির রাজ্য সভাপতি তথা দিলীপ ঘোষকে। আবার কোনও মিছিলে দেখা কেন্দ্রীয়মন্ত্রী তথা রায়গঞ্জের সাংসদ দেবশ্রী চৌধুরীকে।

যদিও বিজেপি নেতৃত্বে দাবি এটা বিজয় মিছিল নয়। এটা সাধারণ মানুষের উল্লাস উৎসব।

আজ শুক্রবার দুপুর ১২টা নাগাদ ব্যান্ডল নলডাঙ্গা অঞ্চল লাগোয়া জিটি রোডে হটাৎই শুরু হয় বিজেপি উল্লাস মিছিল। যে মিছিলের নেতৃত্বে ছিলেন বিজেপির ওবিসি মোর্চার সাধারন সম্পাদক সুরেশ সাউ, সহ সভাপতি রাজীব নাগ, মগরা মন্ডলের যুব সভাপতি প্রভাত গুপ্তা ও রাজ্য কমিটির সদস্য দেবাশিষ সেন সহ বিজেপির একাধিক শীর্ষ নেতৃত্ব। প্রায় ২০০ কর্মী এই মিছিল করেন। বিজয় মিছিলে মুখ্যমন্ত্রীর নিষেধাজ্ঞা প্রসঙ্গে বিজেপির ওবিসি মোর্চার সাধারন সম্পাদক বলেন, গোটা হুগলি জেলা তথা সারা পশ্চিমবঙ্গে ২৩তারিখের পর থেকেই মানুষ উল্লাশ আনন্দে মেতে আছেন। এদিন আমারও একটু উল্লাসে মেতে উঠেছি। তবে যদি এটা কেউ বিজয় মিছিল ভাবে তাহলে কিছু করার নেই বলেই মন্তব্য তাঁর।

হুগলির পাশাপাশি এদিন বিজয় মিছিল বের হয় কালিয়াগঞ্জেও। রায়গঞ্জ লোকসভা কেন্দ্রের জয়ী বিজেপি সাংসদ দেবশ্রী চৌধুরীর সমর্থনে এই মিছিল বার হয়। যেখানে উপস্থিত ছিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ সহ বিজেপির একাধিক শীর্ষ নেতৃত্ব।

উল্লেখ্য, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিজয় মিছিলের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিলেন। তাঁর এই হুঁশিয়ারির জবাবে বৃহস্পতিবারই বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ পাল্টা বলেন, বিজয় মিছিল করবই। জোর করে আটকাতে গেলে চরম সংঘাতের পথে যাবে দল। এখনও কোথাও সেভাবে বিজয় মিছিল হয়নি। শীঘ্রই জেলায় জেলায় বিজয় মিছিল করা হবে। তিনি বলেন, মেদিনীপুরেও বিজয় মিছিল হবে। বিজয় মিছিলের কথা প্রশাসনকে জানিয়ে দেওয়া হবে। তারপরেও রুখতে গেলে প্রতিরোধ হবেই। মুখ্যমন্ত্রী যা আচরণ করছেন, তা চরম স্বৈরতান্ত্রিক এবং একনায়কতন্ত্রের সমতুল। বিজয় মিছিল রুখলে মানুষ তা কড়ায়গন্ডায় মিটিয়ে দেবে।

আর দিলীপ ঘোষের এই হুঁশিয়ারির পরেই জেলার একাধিক জায়গায় বিজয় মিছিল করল বিজেপি।