শ্রীনগর: গেরুয়া শিবিরকে বেনজির আক্রমণ জম্মু কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা ন্যাশনাল কনফারেন্স প্রধান ফারুক আবদুল্লার। মুসলিম অধ্যুষিত ‘‘জম্মু ও কাশ্মীরে হিন্দুদের আধিপত্য বাড়াতে চায় বিজেপি’’, এমনই চাঞ্চল্যকর দাবি বর্ষীয়ান এই রাজনীতিবিদের।

বিজেপিকে কড়া ভাষায় আক্রমণ ন্যাশনাল কনফারেন্স নেতা ফারকুক আবদুল্লার। ধর্মীয় কারণেই জম্মু ও কাশ্মীরকে ভেঙে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল বানানো হয়েছে বলে অভিযোগ কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর। সম্প্রতি সর্বভারতীয় একটি সংবাদমাধ্যমে একটি সাক্ষাৎকার দিয়েছেন বর্ষীয়ান এই রাজনীতিবিদ। এছাড়াও জনগণনার জন্য চলতি বছরের মার্চ মাসে কেন্দ্রের গঠিত কমিশন প্রসঙ্গেও মোদী সরকারকে তুলোধনা করেছেন কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ফারুক আবদুল্লা।

উল্লেখ্য, জম্মু ও কাশ্মীর-সহ অসম, অরুণাচল প্রদেশ, মণিপুর ও নাগাল্যান্ডে জনগণনার জন্য কমিশন গঠন করে কেন্দ্র। তবে কেন্দ্র যেভাবে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল জম্মু ও কাশ্মীর-সহ বাকি রাজ্যগুলির সীমা নির্ধারণ করতে চায় তার সঙ্গে একমত নন ফারুক আবদুল্লা। সেই কারণেই শুরুতে কেন্দ্রের তৈরি সেই কমিশনে যুক্ত থাকলেও পরে কমিশন থেকে সরে আসে তাঁর দল।

ফারুক আবদুল্লার অভিযোগ, ‘‘জম্মু ও কাশ্মীরে হিন্দুদের আধিপত্য বাড়াতে চায় বিজেপি। মুসলিমদের সংখ্যা কমিয়ে দেখানোর চেষ্টা করছে। হিন্দু ও মুসলিমদের মধ্যে বিভাজন তৈরির চেষ্টা হচ্ছে। আমাদের আলাদা করতে চাইছে। ধর্মীয় কারণেই জম্মু ও কাশ্মীরকে ভেঙে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল বানানো হয়েছে। বিজেপির এই উদ্দেশ্য কোনওদিন সফল হবে না।’’

জম্মু কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করেছে কেন্দ্র। রাজ্যের মর্যাদা হারিয়েছে কাশ্মীর। তবে কাশ্মীরের মর্যাদা ফেরতের লক্ষ্যে এবার একজোট হয়েছে উপত্যকার রাজনৈতিক দলগুলি।

বিজেপি বাদ দিয়ে ন্যাশনাল কনফারেন্স, পিডিপি, বাম, কংগ্রেস-সহ উপত্যকার সব দলের নেতারা ইতিমধ্যেই নিজেদের মধ্যে বৈঠক সেরে ফেলেছেন। শান্তিপূর্ণ উপায়ে কীভাবে দাবি আদায়ে আন্দোলন হবে তা নিয়ে চলছে আলোচনা।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।