স্টাফ রিপোর্টার, তমলুক: বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রাজ্যের ৪২টি আসনে মধ্যে ২৮টি আসনে প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করেন বিজেপি নেতা জে পি নাড্ডা। শ্রী নাড্ডার এই প্রার্থী তালিকা অনুসারে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার তমলুক লোকসভা কেন্দ্র থেকে বিজেপির তরফ থেকে দাঁড়াচ্ছেন নদিয়া জেলার নবদ্বীপের বাসিন্দা সিদ্ধার্থ শেখর দাস নস্কর।

নির্বাচন কমিশনের তরফ থেকে নির্ঘণ্ট প্রকাশের পর থেকেই সমস্ত রাজনৈতিক দলের মধ্যে শুরু হয়ে গিয়েছিল প্রার্থী তালিকা প্রকাশের প্রস্তুতি। কমিশনের লোকসভা ভোটের দিনক্ষণ ঘোষনার পর শাসকদল তৃণমূল রাজ্যের ৪২ টি আসনের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করে প্রচারে এগিয়ে ছিল।

পরে কংগ্রেস ও বাম তাদের কয়েকটি আসনের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করলেও বর্তমান প্রধান বিরোধীদল বিজেপি তাদের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করতে পারেনি। যা নিয়ে নানা জল্পনা তৈরি হয় রাজ্য রাজনীতিতে। এর মাঝে গত কয়েকদিন ধরে বাম-কংগ্রেসের জোট নিয়ে ব্যাপক টানাপোড়েন চলতে থাকে।

আরও পড়ুন : বাবুলের শোকজের জবাবে খুশি নয় কমিশন

আর এই টানাপোড়েনের শেষে যখন বাম-কংগ্রেসের মধ্যে জোট না হওয়ার সিদ্ধান্ত হয় তখন অপর রাজনৈতিক দল বিজেপি রাজ‍্যের মোট ২৮টি আসনে নিজেদের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করে। বৃহস্পতিবার প্রার্থীর নাম ঘোষণা হওয়ার পরেই জেলা পূর্ব মেদিনীপুর জেলা বিজেপি নেতৃত্বের মধ্যে এক ব‍্যাপক উদ্দীপনা লক্ষ্য করা যায়।

প্রার্থীকে নিয়ে জয়ের লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য এখন রাত দিন এক করে লেগে পড়েছে বিজেপি কর্মীরা শনিবার নবদ্বীপে মহাপ্রভুদেবকে প্রণাম করে মূল নির্বাচনী প্রচার শুরু করবেন৷ সেই প্রচারের মধ্যমণি তমলুক লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি মনোনীত প্রার্থী সিদ্ধার্থ শেখর দাস নস্কর।

তিনি শুক্রবার প্রথমে নবদ্বীপের মহাপ্রভু দেবের বাড়িতে গিয়ে প্রণাম করেন এবং এরপর তিনি বিষ্ণুপ্রিয়া বাড়িতে গিয়ে প্রণাম সেরে তিনি সোজা তমলুকের উদ্দেশ্যে রওনা দেন। তিনি শনিবার তমলুকে জেলার বিজেপি নেতৃত্বদের সঙ্গে আগামী লোকসভা নির্বাচন প্রসঙ্গে এক বৈঠকেও অংশ নেবেন।

আরও পড়ুন : অনুব্রতর ভয় বাড়িয়ে ‘মরশুমি পাখি’কে লক্ষ ভোটে ওড়াতে চান দুধকুমার

৩৪ বছরের বাম শাসনের পতনের পর থেকে তৃণমূলের এক শক্ত ঘাঁটি এই পূর্ব মেদিনীপুর জেলা। জেলার দুটি লোকসভা কেন্দ্রের মধ্যে তমলুক লোকসভা কেন্দ্রে গত বেশ কয়েকটি লোকসভা নির্বাচনে জয়ী হয়ে সাংসদ হয়েছিলেন বর্তমান রাজ‍্যের পরিবহন ও পরিবেশমন্ত্রী তথা তৃণমূলের রাজ‍্য স্তরের নেতা শুভেন্দু অধিকারী।

এরপর তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে তিনি গত বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূলের প্রার্থী হিসেবে নন্দীগ্রাম বিধানসভা কেন্দ্র থেকে দাঁড়ান। এর ফলে ফাঁকা হয়ে যায় তমলুক লোকসভা কেন্দ্রের সাংসদ আসন। এরপর ২০১৬ সালে উপনির্বাচনে তমলুক লোকসভা কেন্দ্র থেকে দাঁড়ান চলতি লোকসভার তৃণমূল প্রার্থী দিব‍্যেন্দু অধিকারী।

তিনি ওই উপনির্বাচনে ৫৯.৭৬ শতাংশ ভোট পেয়ে সাংসদ হিসেবে নির্বাচিত হন। তখন বিজেপি ওই আসনে মোট ১৫.০৬ শতাংশ ভোট পায়। এরপর ফের লোকসভা নির্বাচন প্রায় দোরগোড়ায়। আর এই নির্বাচনে তমলুক লোকসভার বিজেপি মনোনীত প্রার্থী সিদ্ধার্থ শেখর দাস নস্করের বিপক্ষে তৃণমূলের হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন বিদায়ী সাংসদ দিব‍্যেন্দু অধিকারী ও বামেদের হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন পূর্ব-পাঁশকুড়া বিধানসভার বিধায়ক ইব্রাহিম আলি।

আরও পড়ুন : প্রার্থী অপছন্দ, দলীয় প্রতীক কালো কালি দিয়ে মুছলেন বিজেপি কর্মীরা

জয়ের ব‍্যাপারে আশাবাদী বিজেপি প্রার্থী সিদ্ধার্থ শেখর দাস নস্কর বলেন,“গত কয়েক বছরে তমলুক লোকসভার মানুষদের নিয়ে কোনো উন্নয়নমূলক কাজকর্ম হয়নি। শুধুই তাদের নিয়ে রাজনীতি করা হয়েছে। তাই সাধারণ মানুষ আমার পাশে আছেন। আমি জয়ের ব‍্যাপারে সম্পূর্ণভাবে আশাবাদী।”

সিদ্ধার্থবাবুকে চলতি নির্বাচনে বাম-কংগ্রেসের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি জানান, “বর্তমানে বামেরা হল ল‍্যাম্পপোষ্ট এবং কংগ্রেসকে দূরবীন দিয়ে দেখতে হয়। তাই এই নির্বাচনে তাদেরকে আর কোনোভাবেই খুঁজে পাওয়া যাবে না।” সবমিলিয়ে এখন জমে উঠেছে জেলার রাজনৈতিক মহল। তৃণমূল, বিজেপি, সিপিএম, নাকি কংগ্রেস কে দখল করবে তমলুক লোকসভার সাংসদ আসন সেটাই এখন মূল দেখার বিষয়।