স্টাফ রিপোর্টার, বালুরঘাট: বিজেপি তৃণমূল সংঘর্ষে উত্তেজনা ছড়াল কুমারগঞ্জের দিওর এলাকায়। অভিযোগ, তৃণমূলের প্রাক্তন বিধায়ক মাহমুদা বেগমের গাড়িতে ভাঙচুর চালান বিজেপির কর্মী সমর্থকরা। কুমারগঞ্জের কলাবাড়ি এলাকায় সভা সেরে ফিরছিলেন ওই বিধায়ক। নেত্রডাঙা এলাকায় বিজেপির লোকেরা তার উপর হামলা চালায় বলে অভিযোগ।

উলটো দিকে বিজেপির অভিযোগ, দিওর এলাকায় তাদের পথসভা ছিল। সেই সভায় আসা সমর্থকদের উপর তৃণমূলের লোকেরাই প্রথমে হামলা চালায়। ঘটনায় বিজেপির মোট তিনজন জখম হয়েছেন। তাদের বরাহার হাসপাতালে ভরতি করা হয়েছে।

প্রাক্তন বিধায়ক মাহমুদা বেগমের অভিযোগ, তার দেহরক্ষী অসুস্থতার এদিন ছুটি নিয়েছিল। দেহরক্ষী ছাড়াই তিনি একা গাড়ি করে ফিরছিলেন। সেই সময় পথ আটকে বিজেপির লোকেরা অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ ও পড়ে গাড়ি লক্ষ্য করে পাথর ছুড়তে শুরু করে। তাতে গাড়ির কাঁচ ভেঙ্গে গিয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছালেও নির্বাক দর্শকের ভূমিকাই পালন করেছে বলে তিনি অভিযোগ করেছেন।

বিজেপি সভাপতি শুভেন্দুর সরকারের অভিযোগ, তিনি নিজে দিওড়ে নির্বাচনী সভা করছিলেন। সেই সভায় আশপাশের গ্রাম থেকে প্রচুর মানুষ এসেছিলেন। এমন সময় রাস্তার পাশে বাঁশঝাড়ে আগে থেকে লুকিয়ে থাকা তৃণমূলের লোকজন তাদের উপর অতর্কিতে হামলা চালায়। হামলায় মোট চারজন জখম হয়েছে বলেও তিনি অভিযোগ করেছেন।

তৃণমূলের সাংসদ তথা অর্পিতা ঘোষ বলেন, বিজেপির অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা। দিওড়ের হামলা বিজেপির অন্তর্দ্বন্দ্বেরই ফল। সেখানে তৃণমূলের কেউ জড়িত নেই। নিজের গোষ্ঠী কোন্দল আড়াল করতেই তৃণমূলের উপর দোষ চাপানোর চেষ্টা করছে।