মালদহ: শেষ দফার নির্বাচনের প্রচার নির্ধারিত সময়ের একদিন আগেই বন্ধ করে দেওয়া নিয়ে নির্বাচন কমিশনের পক্ষেই সওয়াল করলেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ। বৃহস্পতিবার তিনি মালদহের নালাগোলাতে একটি সভা করেন৷

সভা শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বলনে, ‘‘মানুষের সুরক্ষা দিতে পারে না এই সরকার৷ সর্বভারতীয় সভাপতিকে সুরক্ষা দিতে পারে না। … আমাদের চার জন প্রার্থীর উপর হামলা হয়েছে। আমার গাড়ি ভেঙেছে একাধিকবার।’’

দিলীপবাবু আরও জানিয়েছেন, ‘‘এই সরকার রাষ্ট্রীয় সভাপতিকে সুরক্ষা দিতে পারেনি। তাই ওরা বাধ্য হয়েছেন নির্দিষ্ট সময়ের আগে প্রচার বন্ধ করে দিতে৷ না হলে এবারও হয়তো আরও প্রাণহানি হবে, সম্পত্তি হানি হবে। কারণ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাস্তায় নেমে আইন ভাঙে। তাই বন্ধ করতে বাধ্য হয়েছে। বিনা অনুমতিতে তিনি কলকাতায় মিছিল করছেন। পুলিশের মাইক নিয়ে তিনি ঘোষণা করছেন সব জায়গায় আইন অমান্য হবে। কোন অনুমতি ছাড়া নির্বাচন কমিশনের এটা হতে পারে না।’’

তাঁর বক্তব্য, ‘‘আমাদের একটা সভা মালদহে করার কথা ছিল। অনুমতি মেলেনি তাই করিনি। আর উনি কি সমস্ত আইনের ঊর্ধ্বে। সমস্ত বেআইনি কাজ করছেন রাস্তায় নেমে মানুষকে ভয় খাওয়াছেন। তাই নির্বাচন কমিশন বাধ্য হয়ে এটা করেছে। এর সমস্ত দায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। তার সামান্যতম লাজ লজ্জা থাকলে পদত্যাগ করা উচিত।’’

বহিরাগত তথ্য নিয়ে দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘‘বাংলার মানুষ এখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বিশ্বাস করছেন না। বাংলার মানুষ এর যোগ্য জবাব তাকে দেবেন। যেভাবে ভারতী ঘোষের উপর হামলা করা হয়েছে৷ যেভাবে ইটপাটকেল ছোঁড়া হয়েছে তা কাশ্মীরের পরিস্থিতিকেও হার মানিয়ে দেবে।’’