স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া: মঙ্গলবার বিজেপির ‘গান্ধী সংকল্প যাত্রা’য় অংশ নিয়ে পুকুরে ভেলায় চেপে থার্মোকল ও প্লাষ্টিক পরিস্কারের কাজে হাত লাগালেন দলেরই সাংসদ ডাঃ সুভাষ সরকার। সূত্রের খবর, মঙ্গলবার বাঁকুড়ার জুনবেদিয়া মোড় থেকে কর্মী সমর্থকদের সঙ্গে ‘গান্ধী সংকল্প যাত্রা’য় শহরের মাচানতলা আকাশ মুক্ত মঞ্চে যাওয়ার পথে প্রতাপ বাগানে একটি পানা পুকুর দেখে দাঁড়িয়ে যান তিনি।

সেখানে ভেলায় চেপে পুকুরে জমে থাকা আবর্জনা, প্লাষ্টিক, পানা ও জলে পড়ে থাকা থার্মোকলের ব্যবহৃত থালা, বাটি পরিস্কার করেন খোদ সাংসদ নিজেই। এদিকে সাংসদ ডাঃ সুভাষ সরকারের এই অভিনব উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন এলাকার সাধারণ মানুষ। এইবিষয়ে পৌরসভা যথেষ্ট উদাসীন বলেই তিনি মনে করেন। একই সঙ্গে তাঁদের দলের তরফে গান্ধী সংকল্প যাত্রা প্রকৃতি সংরক্ষণের উপরেই বেশী জোর দেওয়া হচ্ছে বলে তিনি মনে করেন।

সাংসদ ডাঃ সুভাষ সরকার এবিষয়ে সাধারণ মানুষকে প্লাষ্টিক ও প্লাষ্টিকজাত দ্রব্য পুকুরে না ফেলার আবেদন জানিয়ে বলেন, ‘প্লাষ্টিক মুক্ত সমাজ আমরা গড়তে চাইছি’। জলের আধার মূলত পুকুর গুলি প্লাষ্টিকে ভরে গেছে। তৃণমূল পরিচালিত বাঁকুড়ার পৌরসভার এই কাজে ব্যর্থতা রয়েছে ইঙ্গিত দিয়ে তিনি বলেন, পুকুরের পাশে এবিষয়ে সচেতনতামূলক কোন বোর্ড নেই। দৈনিক মজুরিতে কাজ করা কর্মীদের দিয়েও শহরের পুকুর গুলি পরিস্কার রাখা যেত। গান্ধী সংকল্প যাত্রায় তারা দূষণ মুক্ত সমাজ গড়ার ডাক দিয়েছেন, বাঁকুড়া পৌরসভার কাছেও সেই বার্তা তারা পৌঁছে দিতে চাইছেন বলে তিনি জানান।

সূত্রের খবর অনুযায়ী, ২০১৯ এর লোকসভা নির্বাচনের ফলাফলের নিরিখে তৃণমূল পরিচালিত প্রায় সব কটি পৌরসভায় এগিয়ে বিজেপি। আর এবার সেই জয়ের ধারা অব্যাহত রেখে বাঁকুড়া পৌরসভা দখলে গেরুয়া শিবির গান্ধী সংকল্প যাত্রাকে ভোট প্রচারে কাজে লাগাতে চাইছে বলে মনে করছেন জেলা রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের একাংশ। সাংসদ ডাঃ সুভাষ সরকারের পুকুর পরিস্কারের এই কাজকে ‘নাটক’ বলে দাবী করেছেন পৌরপ্রধান মহাপ্রসাদ সেনগুপ্ত।

তিনি বলেন, ‘বাঙালি বিদ্বেষী’ একটা দল একদিকে মানুষকে দেশ থেকে বিতাড়ন করছে, অন্যদিকে এই সব ‘নাটক’ করছে। আত্মবিশ্বাসী পৌরপ্রধান এবারের ভোটে ২৪-০ তে তৃণমূল জিতবে বলে দাবী করে বলেন, বিজেপি-সিপিএম এখন কে দ্বিতীয় হবে সেই নিয়ে লড়াই করছে।

সাংসদ ডাঃ সুভাষ সরকারের নাম না করে তিনি আরও বলেন, বেশ কিছু কেন্দ্রীয় প্রকল্পের টাকা পৌরসভা গুলি আগে যা নিত, বিজেপি সরকার ক্ষমতায় এসে তা বন্ধ করে দিয়েছে। কেন্দ্রীয় সরকারের যারা প্রতিনিধি আছেন তারা এইবিষয়ে জবাব দিন বলে দাবী করেন তিনি।

তৃণমূলের বাঁকুড়া সাংগঠনিক জেলা সভাপতি শুভাশীষ বটব্যাল বিজেপি সাংসদ ডাঃ সুভাষ সরকারের পুকুর পরিস্কারের কাজকে কটাক্ষ করে বলেন, উনি যখন সাংসদ হয়েছেন, বাঁকুড়া শহরের একটি পুকুরে না নেমে তাঁর সংসদ এলাকার সব কটি পুকুরেই এভাবে নামুন। প্রয়োজনে সাংসদকে তিনি গামছা কিনে দেবেন বলেও জানান। একই সঙ্গে পুরো বিষয়টি ‘নাটকবাজি’ দাবী করে বলেন, কেউ একজন একটি পুকুরে নেমেই যদি সব পুকুর পরিস্কার হয়ে যায় তাহলে ওই ব্যক্তিকে তারা ‘কাঁধে চাপিয়ে ঘুরবেন’ বলে জানান।