শুভেন্দু ভট্টাচার্য, কোচবিহার: বিজেপি কর্মীদের উপর তৃণমূলের হামলা বন্ধের দাবিতে ও দিনহাটার বিধায়ক উদয়ন গুহের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ জানিয়ে জেলা শাসককে স্মারকলিপি জেলা বিজেপি৷

জেলাজুড়ে বিজেপি কর্মী থেকে নেতৃত্বদের ওপরে আক্রমণ, বিজেপি কর্মীদের  বাড়ি ভাঙচুর, কর্মীদের মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর অভিযোগ নিয়ে বুধবার কোচবিহার জেলা বিজেপির প্রতিনিধি দল কোচবিহার জেলা শাসকের সঙ্গে দেখা করে  স্মারকলিপি জমা দেয়৷ বিজেপির পক্ষ থেকে এদিন দিনহাটা  বিধায়ক উদয়ন গুহর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করার পাশাপাশি বিজেপি কর্মীদের বাড়ি ফেরানোর ব্যবস্থা করার কথা বলা হয়েছে৷

কোচবিহার জেলা বিজেপির সভাপতি নিখিলরঞ্জন দে বলেন, গত লোকসভা নির্বাচনের পর থেকে কোচবিহার জেলাজুড়ে বিজেপি কর্মীদের উপর আক্রমণ করা হচ্ছে। কর্মীদের বাড়ি ভাংচুর করা হয়েছে৷ সমস্ত বিষয় ক্ষতিয়ে দেখতে গত ১৩ মে রাজ্য নেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায় ও জয়প্রকাশ মজুমদার কোচবিহারে আসেন৷ যখন তাঁরা আহত বিজেপি কর্মীদের বাড়িতে যান সেই সময় দিনহাটার ভেটাগুরি এলাকায় রাজ্য নেতাদের গাড়িতে তৃণমূল কংগ্রেসের গুন্ডাবাহিনিরা পুলিশের সামনে দুই নেতা নেত্রীর গাড়ির উপর হামলা চালায়৷

একই ঘটনা দিনহাটার নাজিরহাটে ঘটে৷ কিন্তু তারপর থেকে তৃণমূল কংগ্রেসের গুন্ডাবাহিনী তাঁদের কর্মীদের  বাড়ি ভাঙচুর চালায়৷ পার্টি অফিসে আগুন লাগিয়ে দেয়৷ কিন্তু এই ঘটনায় কেউ গ্রেফতার হয়নি। দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবার দাবিতে তাঁদের এই স্মারক লিপি বলে জানান তিনি।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.