ভোপাল: কর্ণাটক ও গোয়ায় যা পরিস্থিতি তাতে ইতিমধ্যেই প্রমাদ গুনতে শুরু করেছে কংগ্রেস। এবার মধ্যপ্রদেশ নিয়েও আশঙ্কায় ভুগতে শুরু করেছে রাজ্যের শাসক দল। তাই আশঙ্কার কথা স্বীকার না করলেও দফায় দফায় বৈঠক করছেন কংগ্রেসের শীর্ষ নেতারা।

সম্প্রতি ইস্তফা দিয়েছেন কর্ণাটকের ও গোয়ার একাধিক কংগ্রেস বিধায়ক। এরপরই খাবর পাওয়া গিয়েছে, মধ্যপ্রদেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রী তথা কংগ্রেস নেতা তুলসী সাওয়ন্তের বাড়িতে নেতাদের নিয়ে একটি নৈশভোজের আয়োজন করা হয়েছে। মনে করা হচ্ছে, দলের মধ্যে একতা দেখাতেই এই বৈঠকের আয়োজন। সেখানে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যে মুখ্যমন্ত্রী কমলনাথও। ছিলেন জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া। সব বিধায়করাও ছিলেন সেখানে।

যদিও কংগ্রেস নেতাদের মধ্যে এই ধরনের নৈশভোজ রুটিন ছাড়া আর কিছুই নয়। তাদের দাবি, কমল নাথের মুখ্যমন্ত্রিত্বে পাঁচ বছর চলবে সরকার।

ওই রাজ্যেরই আর এক মন্ত্রী তরুণ ভানোত বিজেপিকে আক্রমণ করেন। বলেন, ‘বিজেপি গোয়া আর কর্ণাটকে তাদের চরিত্র দেখিয়ে দিয়েছে। এরা বিহারেও একই কাজ করেছে। ‘

সম্প্রতি, কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন গোয়ার ১০ বিধায়ক। ইতিমধ্যেই দিল্লি গিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে দেখা করেন। তাঁদের সঙ্গে দিল্লিতে এসেছেন গোয়ার মুখ্যমন্ত্রী প্রমোদ সাওয়ন্ত। তিনি জানিয়েছেন, বিজেপিতে যোগ দেওয়ার জন্য কাউকে জোর করা হয়নি।

মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, সব বিধায়কেরাই উন্নয়নের স্বার্থে বিজেপির কাছে এসেছেন।তাঁরা নিজেরাই এসেছেন, কেউ চাপ দেয়নি। তাঁরা নিঃস্বার্থভাবে বিজেপি সরকারকে সমর্থন করবেন।

বৃহস্পতিবারই বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা ও অমিত শাহের সঙ্গে দেখা করানো হবে এই বিধায়কদের। তবে গোয়ার মন্ত্রিসভায় কোনও রদবদল হবে কিনা, সে ব্যাপারে এখনও কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।