স্টাফ রিপোর্টার , হাওড়া : রাতের অন্ধকারে বিজেপির কার্যালয়ে ঢুকে ভাঙচুর চালানোর অভিযোগ উঠল তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতিদের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে গ্রামীণ হাওড়ার উলুবেড়িয়া পৌরসভার ১৮ নং ওয়ার্ডের জামবেড়িয়ায়।

বিজেপি সূত্রে খবর,গতকাল সন্ধ্যায় জামবেড়িয়ায় বিজেপি কার্যালয়ে একটি দলীয় বৈঠকের আয়োজন করা হয়।তারপরই রাতে বেশ কিছু দুষ্কৃতি বিজেপির দলীয় কার্যালয়ে ভাঙচুর চালায় বলে অভিযোগ।অভিযোগ,পার্টি অফিসে থাকা প্রধানমন্ত্রীর ছবি,দলীয় পতাকা ও জানালার গ্রিল খুলে নিয়ে পালিয়ে যায় দুষ্কৃতিরা।অফিসে থাকা বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ নথিপত্রও লোপাট করার অভিযোগ উঠেছে দুষ্কৃতিদের বিরুদ্ধে।

হাওড়া গ্রামীণ জেলা বিজেপির সহ-সভাপতি রমেশ সাঁধুখা বলেন,”রাজ্যজুড়ে তৃণমূল যত পায়ের নীচে মাটি খোয়াচ্ছে ততই বাড়ছে সন্ত্রাস।”তিনি জানান,”গতকাল আমাদের জামবেড়িয়া পার্টি অফিসে সন্ধ্যা ৭ টা থেকে কর্মীদের নিয়ে বৈঠক ছিল।তারপর গভীর রাতে তৃণমূলের দুষ্কৃতিরা এই হামলা চালায়।” সকালে উলুবেড়িয়া থানায় গিয়ে লিখিত অভিযোগ জানান ১৮ নং ওয়ার্ডের বিজেপি সভাপতি। ঘটনাস্থলে আসে উলুবেড়িয়া থানার পুলিশ।

উত্তর ২৪ পরগনার বরানগরে বিজেপির কার্যালয়ে ভাঙচুরের অভিযোগ ওঠে। তাও একই দিনে। ওই চত্বরে বিজেপির যত ফ্লেক্স, দলীয় পতাকা ছিল সমস্ত এক জায়গায় এনে আগুন লাগিয়ে দেওয়ার অভিযোগ ওঠে। ঘটনাস্থলে যান বরানগর থানার পুলিশ। বিজেপির পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা এই কাজ করেছে। যদিও স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। স্থানীয় তৃণমূল নেতা অঞ্জন পাল জানিয়েছেন, এই ঘটনার সঙ্গে কোনওভাবে তৃণমূল যুক্ত নয়। বিজেপির গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরে এই ঘটনা ঘটেছে। বিজেপির পক্ষ থেকে স্পষ্ট অভিযোগ করা হয়েছে বরানগরে বিজেপির সংগঠন দিনকে দিন বাড়ছে। তাতেই তারা তৃণমূল নেতৃত্বের চক্ষুশুল হয়ে উঠেছে। সেই কারণে দলীয় কার্যালয় হামলা চালানো হয়েছে।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।