নয়াদিল্লি: প্রধানমন্ত্রী হওয়ার আগে এনডিএ জোটের নেতা হিসেবে নির্বাচিত হলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। শনিবার বিজেপি ও এনডিএ শরিকদের দিল্লিতে ডাকা হয়েছিল। সংসদে সেন্ট্রাল হলে এদিন এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে মোদীকে নেতা বাছা হয়। মোদীর পাশে উপস্থিত ছিলেন লালকৃষ্ণ আদবানী, মুরলী মনোহর যোশী ও অমিত শাহ।

এবারই প্রথম লোকসভা নির্বাচনে প্রার্থী করা হয়নি আদবানীকে। তাঁর কেন্দ্র গান্ধীনগর থেকে লড়েছেন অমিত শাহ। বয়সের কারণেই আদবাণীকে টিকিট দেয়নি বিজেপি। আর বর্ষীয়ান নেতাকে ছেঁটে ফেলা হচ্ছে বলে সরব হন বিরোধীরা। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তো ফোনও করেছিলেন আদবানীকে। যদিও জয়ের পর প্রথমেই বর্ষীয়ান এই দুই নেতার সঙ্গে দেখা করে তাঁদের আশীর্বাদ চেয়ে নেন মোদী ও অমিত শাহ।

এদিনই রাত আটটা নাগাদ নরেন্দ্র মোদী রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের সঙ্গে দেখা করে সরকার গঠনের আর্জি জানাবেন।

নরেন্দ্র মোদীকে নেতা বেছে নিয়েছেন এনডিএ শরিকরা। এদিন বিজেপি নেতারা ছাযাও সেখানে উপস্থিত ছিলেন শিরোমণি অকালি দলের প্রধান প্রকাশ সিং বাদল। তিনি নরেন্দ্র মোদীর নাম নেতা হিসেবে প্রস্তাব করেন। সেই প্রস্তাবে সম্মত হন জনতা দল ইউনাইটেডের নেতা নীতীশ কুমার ও শিব সেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরে।

বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ নিজের ভাষণে বলেন, আমি জোটসঙ্গী সকলকে এবং বিজয়ী সাংসদদের নরেন্দ্র মোদীকে এনডিএ-র নেতা ও দেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বাছার জন্য ধন্যবাদ জানাচ্ছি। ৩৫৩ জন সাংসদ সর্বসম্মতভাবে এদিন মোদীকে নেতা হিসেবে বেছে নিয়েছেন।

এবার তিনি রাষ্ট্রপতির কাছে গিয়ে সরকার গঠনে আর্জি জানাবেন। শুক্রবারই প্রধানমন্ত্রী হওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রিত্বের পদ থেকে নরেন্দ্র মোদী ইস্তফা দেন। তিনি রাষ্ট্রপতি কোবিন্দের হাতে ইস্তফাপত্র তুলে দিলে তিনি তা গ্রহণ করেন। এবং সম্মত হন। এবার তিনি সরকার গঠনের আর্জি জানাবেন এবং সেই মতো রাষ্ট্রপতির সম্মতি নিয়ে আগামী ৩০মে প্রধানমন্ত্রী পদে দ্বিতীয়বারের জন্য শপথ নেবেন নরেন্দ্র মোদী।