কলকাতা: মিছিল আটকাতে পুলিশের লাঠিচার্জ , কাঁদাতে গ্যাসের শেল ফাটানোর অভিযোগ৷ আহত বহু৷ নামানো হয়েছে RAF। মিছিলের শুরুতেই রণক্ষেত্র কলকাতার হেস্টিংস ও সাঁতরাগাছি৷ মিছিল ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশের লাঠিচার্জ৷ কাঁদাতে গ্যাসের শেল ফাটানোর অভিযোগ৷

পুলিশের সাথে বিক্ষোভকারীদের ধস্তাধস্তি৷

জলকামানের মাধ্যমে রঙিন জল ব্যবহার করা হয়৷ ঘটনায় আহত হয়েছেন বহু বিজেপি কর্মী সমর্থকরা৷ হেস্টিংস মোড়ে বিজেপি মিছিল এগোতেই বাধা পুলিশের৷ মিছিল ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশের লাঠিচার্জ৷ শুরু হয় ইটবৃষ্টি। পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট ছোঁড়ার অভিযোগ৷ পাশাপাশি বোম ফাঁটানো হয়ে বলে অভিযোগ৷

অন্যদিকে হেস্টিংসে বহু বিজেপি কর্মী আহত হন৷ হেস্টিংস মোড়ে বসে পড়েন কৈলাস বিজয়বর্গীয়, লকেট চট্টোপাধ্যায় সহ বিজেপির নেতানেত্রীরা৷ কলকাতা ও হাওড়ায় প্রায় ৪ হাজার পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে৷

বিজেপির মিছিল আটকানোর জন্য ত্রিস্তরীয় নিরাপত্তার ব্যবস্থা পুলিশের৷ প্রথম স্তরে সাধারণ ব্যারিকেড৷ দ্বিতীয় স্তরে ব্যারিকেড ও পুলিশ৷ তৃতীয় স্তরে অ্যালুমিনিয়াম ব্যারিকেড, রোবোকপ ও জলকামান৷

অন্যদিকে, বিজেপির নবান্ন অভিযান ঘিরে তুলকালাম। পুলিশের সঙ্গে খণ্ডযুদ্ধ বিজেপি কর্মী-সমর্থকদেকর। এরই মধ্যে এক বিজেপি কর্মীর কাছে মিলেছে আগ্নেয়াস্ত্র। সাঁতরাগাছিতে বিজেপির মিছিলে ছিলেন ওই ব্যক্তি। ইতিমধ্যেই পুলিশ ওই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে। তাকে জেরা করা চলছে।

বিজেপি যে ৭ দফা দাবিতে নবান্ন অভিযান তা হল-১) এসএসসি /টেট এর দুর্নীতির বিরুদ্ধে৷ (২)স্বচ্ছ নিয়োগ প্রক্রিয়া৷ (৩)বেকার ভাই- বোনদের চাকরির ব্যবস্থা করতে৷ (৪)পরীক্ষার ক্ষেত্রে বয়সের উর্ধ্বসীমা বাড়াতে৷(৫) পিএসসি কে দূর্নীতিমুক্ত করতে এবং নিয়োগ প্রক্রিয়াকে সরলীকরণ করতে৷ (৬)ঘুষ নিয়ে চাকরি দেওয়া বন্ধ করতে৷ (৭)বেকার যুবকদের ভাতা নয়, চাকরির দাবিতে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।