মুম্বই: লোকসভা ভোটের আগে বিতর্কিত মন্তব্য করে বসলেন বিজেপি বিধায়ক সুরেশ ধাস। তাঁর বক্তব্যের তীব্র নিন্দা এসছে বিরোধী শিবির থেকে। একই সঙ্গে দলের অন্দরেও বেশ চাপের মুখে পড়তে হয়েছে তাঁকে।

আরও পড়ুন- ‘মোদী-বিরোধী’ বনধ ব্যর্থ করতে রাস্তায় কেন নেই বিজেপি, প্রশ্ন সিপিএমের

সুরেশ ধাস মহারাষ্ট্রের বিধান পরিষদের সদস্য। ওই রাজ্যের শাসকদল বিজেপির এই বিধায়ক বিহার থেকে আগত ব্যক্তিদের সম্পর্কে বেফাঁস মন্তব্য করায় ছড়িয়েছে বিতর্ক। তিনি বলেছিলেন, “বিহার থেকে বহু মানুষ মহারাষ্ট্রে কাজ করতে আসে। তাঁরা এখানেই থাকেন। বাড়িতে তাদের স্ত্রীরা সন্তান প্রসব করে আর তারা মহারাষ্ট্রে মিস্টি বিতরণ করেন।”

খুব স্বাভাবিকভাবেই বিধায়কের মুখে এই মন্তব্য ঘিরে ছড়িয়েছে চাঞ্চল্য। দলের অন্দরেই তোপের মুখে পড়েছেন বিধায়ক সুরেশ ধাস। মহারাষ্ট্রের বিজেপি নেতা হায়দার আজম বলেছেন, “দলের পক্ষ থেকে সুরেশ ধাসের কাছে এই বিষয়ে জবাব চাওয়া হবে। তাঁকে নিঃশর্ত ক্ষমতা চাইতে হবে।” একই সঙ্গে মহারাষ্ট্রের অন্য এক বিজেপি নেতা সঞ্জয় টিগার বলেছেন, “এই ধরনের মন্তব্য কেবল নিন্দনীয় নয়, বিভেদপূর্ণও।”

এনডিএ শরিক জনতা দল ইউনাইটেড-এর পক্ষ থেকেই আক্রমণ করা হয়েছে বিজেপি বিধায়ক সুরেশ ধাসের বক্তব্যকে। ওই দলের মুখপাত্র রাজীব রঞ্জন বলেছেন, “এই ধরনের বক্তব্য অত্যন্ত নিন্দনীয়। সেই সঙ্গে ওই বক্তব্য পেশ করে বিহারের ১১ কোটি মানুষকে অপমান করেছেন বিধায়ক। তাঁর বক্তব্য বিহারের সম্মানিত জনগণকে আক্রমণ করেছেন।”

নীতিশ কুমারের জনতা দল ইউনাইটেড এই মুহূর্তে বিহারের শাসন ক্ষমতায় রয়েছে। তাদের মূল প্রতিপক্ষ হচ্ছে লালু প্রসাদের রাষ্ট্রীয় জনতা দল বা আরজেডি। এই আরজেডি বিহারে অবিজেপি জোটের প্রধান মুখ। খুব স্বাভাবিকভাবেই বিজেপি বিধায়কের এই বক্তব্যকে হাতিয়ার করেছে আরজেডি শিবির। আরজেডি-র পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, “এই ধরনের বক্তব্য থেকেই শাসকদলের মতাদর্শের পরিচয় পাওয়া যায়।”