প্রীতম সরকার, রায়গঞ্জ: আত্মহত্যাই করেছেন উত্তর দিনাজপুরের হেমতাবাদের মৃত বিধায়ক দেবেন রায়। ময়নাতদন্তের রিপোর্টে এমনই উল্লেখ করা হয়েছে।

সোমবার মৃত বিধায়কের দেহ ময়না তদন্ত করা হয় রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের মর্গে। রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে, গলায় ফাঁসের দাগ একটা নয়৷ এবং গলায় ফাঁসের কারণেই হয়েছে মৃত্যু৷ ময়নাতদন্তের রিপোর্টে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য উঠে এসেছে।

যদিও এই রিপোর্টের সত্যতা মানতে নারাজ বিজেপির নেতারা। তাঁদের বক্তব্য, মৃত দেবেন বাবুর রহস্যজনক মৃত্যুর সিবি আই তদন্ত দাবি করেছেন তাঁরা। কোচবিহারের সাংসদ নীশিথ প্রামানিক থেকে উত্তর মালদহের সাংসদ খগেন মুর্মু – প্রত্যেকেই এই ঘটনার সিবিআই তদন্ত দাবি করেছেন।

এদিকে, বিধায়কের দেহের ময়নাতদন্তের পর একটি রিপোর্ট প্রকাশ্যে এসেছে৷ সেই রিপোর্টে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ উল্লেখ করা হয়েছে৷ তার মধ্যে প্রথম গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, বিধায়কের গলায় যে ফাঁসের দাগ ছিল, সেটি ডাক্তারি পরিভাষায় বলা হয়েছে ‘নন কন্টিনিউয়াস’ অর্থাৎ একটানা নয়৷ নিরবিচ্ছিন্নভাবে গলায় ফাঁসের দাগ পাওয়া যায়নি৷ গলাজুড়ে বেশ খানিকটা অংশ দাগ রয়েছে৷ এবং কিছু অংশে দাগ নেই৷ ডাক্তারি পরিভাষায় উল্লেখ করা হয়েছে, ‘নন কন্টিনিউয়াস লিগেচার্স মার্ক’ হিসাবে।

দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ বিষয় উল্লেখ করা হয়েছে, সেখানে বলা হয়েছে, ফাঁসের দাগের কারণে তাঁর মৃত্যু হয়েছে৷ এই মৃত্যু কারণ হিসেবে ডাক্তারি পরিভাষায় উল্লেখ করা হয়েছে, ‘অ্যান্টি মর্টেম ইন নেচার’, অর্থাৎ তাঁর গলায় ফাঁসের কারণ মৃত্যু হয়েছে৷ গলায় ফাঁসের দাগ কারণে হয়েছে মৃত্যু৷ অন্য কোনও আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি বলেও ময়নাতদন্তের রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে বলে খবর৷

এক টানা গলায় ফাঁসের দাগ থাকার অর্থ আত্মহত্যার ইঙ্গিত। এরকমই মত পোষ্ট মর্টেম বিশেষজ্ঞদের৷ যদিও গোটা ঘটনাটি ইতিমধ্যেই সিআইডি তদন্ত ভার গ্রহণ করেছে৷ গোটা ঘটনার পেছনে প্রাথমিকভাবে পুলিশের তরফে আত্মহত্যার কারণ বলে মনে করা হলেও পরিবারের তরফে খুনের অভিযোগ তোলা হচ্ছে৷

হাত বাঁধা অবস্থায়, বাড়ি থেকে এক কিমি দূরে গিয়ে কেন বিধায়ক আত্মহত্যা করলেন? প্রশ্ন তুলেছেন পরিবারের সদস্যরা৷ বিজেপির তরফে সরাসরি সিবিআই তদন্তের দাবি তোলা হয়েছে৷ বিধায়কের মৃত্যুর ঘটনায় আজ রাষ্ট্রপতির দ্বারস্থ হতে পারে বিজেপির উচ্চ নেতৃত্ব৷ সেখানে সিবিআই তদন্তের দাবি জানানো হতে পারে বলে বিজেপি সূত্রের খবর৷
হেমতাবাদের বিধায়কের গলায় ফাঁসেই মৃত্যু হয়েছে, মত বিশেষজ্ঞদের।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ