কলকাতা : হেমতাবাদের বিজেপি বিধায়ক দেবেন্দ্র নাথ রায়ের রহস্য মৃত্যুর ঘটনায় কোনওভাবেই রাজনীতির যোগ নেই। তবে বিজেপি গোটা ঘটনার সঙ্গে রাজনীতিকে জুড়তে চাইছে। বুধবার রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের কাছে এমনই অভিযোগ করলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন তিনি বলেন বিধায়কের রহস্য মৃত্যুর ঘটনাকে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার প্লটে সাজাতে চাইছে বিজেপি।

যদিও এই ঘটনার সঙ্গে রাজনীতির কোনও যোগ নেই। এটি পুরোপুরি আত্মহত্যার ঘটনা। বুধবার রাষ্ট্রপতিকে একটি চিঠি লেখেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী। বিধায়ক দেবেন্দ্র নাথ রায়ের পোস্ট মর্টেম রিপোর্টও নিজের চিঠিতে উল্লেখ করেন মমতা।

তিনি লেখেন, রাজ্য পুলিশের হাতে বিধায়কের ময়নাতদন্তের রিপোর্ট এসে পৌঁছেছে। সেখানে আত্মহত্যাই সন্দেহ করা হচ্ছে। স্থানীয় টাকা লেন দেনের ঘটনার সঙ্গে এই রহস্য মৃত্যুর যোগ থাকতে পারে বলেও সন্দেহ প্রকাশ করেছেন মমতা। উল্লেখ রয়েছে। চিঠিতে মমতা আরও লেখেন বিধায়কের পকেট থেকে একটি সুইসাইড নোট মিলেছে। সেখানে দুজন ব্যক্তির নাম উল্লেখ রয়েছে। যারা এই টাকা লেনদেন প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত ছিল বলে মনে করছে পুলিশ।

গোটা ঘটনায় দুঃখপ্রকাশ করে মমতা বলেন, এই ঘটনা কোনওভাবেই রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত নয়, কিন্তু সেভাবেই গোটা ঘটনাকে সাজাতে চাইছে বিজেপি। এদিকে, মঙ্গলবার হেমতাবাদে বিজেপি বিধায়ক দেবেন্দ্র নাথ রায়ের রহস্যমৃত্যুতে সিবিআই তদন্ত চেয়ে রাষ্ট্রপতির দ্বারস্থ হন বিজেপি সাংসদরা।

তাঁদের সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের বিজেপির পর্যবেক্ষক কৈলাশ বিজয়বর্গীও ছিলেন। মৃত বিধায়কের ময়না তদন্তের যে প্রাথমিক রিপোর্ট এসেছে তাতে দেখা যাচ্ছে গলায় ফাঁস লেগে শ্বাসরোধেই তাঁর মৃত্যু হয়েছে। কিন্তু দেবেন রায়ের পরিবার আত্মহত্যা বলে মানতে নারাজ।

গভীর রাতে তাঁকে তুলে নিয়ে গিয়ে খুন করা হয়েছে বলে অভিযোগ পরিবারের সদস্যদের। একই অভিযোগ বিজেপিরও। মঙ্গলবার রাষ্ট্রপতির কাছে সেই অভিযোগ জানান কৈলাশ বিজয়বর্গীয়, সাংসদ বাবুল সুপ্রিয় ও সাংসদ রাজু সিং বিস্তা।

রাষ্ট্রপতির তাঁদের অনুরোধ, দেবেন্দ্রনাথ রায়ের মৃত্যু ঘটনায় সিবিআই তদন্ত করতে হবে। এনিয়ে পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপালের কাছ থেকে রিপোর্ট চাইতে হবে এবং বিধানসভা ভেঙে দিতে হবে। এদিন কৈলাশ বিজয়বর্গীয় বলেন, “এই ধরনের খুনের ঘটনা প্রথম বাংলায় ঘটল না।

এর আগে পুরুলিয়ায় বিজেপি কর্মী খুন হয়েছেন। এবার একজন বিধায়ক খুন হলেন। আমরা রাজ্য সরকারের কোনও তদন্ত সংস্থাকে বিশ্বাস করি না। তাই রাষ্ট্রপতির কাছে সিবিআই তদন্তের অনুরোধ করেছি। বাংলার রাজ্যপালের কাছ থেকে এনিয়ে রিপোর্ট চাওয়ারও অনুরোধ জানিয়েছি।”

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ