মুম্বই- সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর ঠিক ৬ দিন আগে মৃত্যু হয় তারই প্রাক্তন ম্যানেজার দিশা সালিয়ানের। মৃত্যুর দিন, অর্থাৎ ৮ জুন নাকি সাহায্য চাওয়ার জন্য দিশা নিজের ফোন থেকে ১০০ ডায়াল করেছিলেন। অর্থাৎ মুম্বই পুলিশকে যোগাযোগ করেছিলেন। বিজেপি নেতা নীতেশ রানে এই দাবি করেছেন।

এই প্রসঙ্গে রিপাবলিক টিভির সাংবাদিক মহারাষ্ট্রের মন্ত্রী অনিল দেশমুখকে মুম্বই পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। জানা যাচ্ছে সেই প্রশ্নের উত্তর দেননি অনিল দেশমুখ এবং সাক্ষাৎকার থেকে বেরিয়ে যান তিনি। সুশান্ত সিং রাজপুতের মামলাতেও মুম্বই পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। আর এবার দিশা সালিয়ান এর ক্ষেত্রেও একই রকম প্রশ্ন উঠছে।

সংবাদ সংস্থা এএনআই-কে নীতেশ রানে বলেন, “এটা যদি দুর্ঘটনাজনিত মৃত্যু অথবা আত্মহত্যাই হত, তাহলে মুম্বই পুলিশ কেন তদন্তকারী আধিকারিককে এই মামলায় দু’বার পরিবর্তন করল। রোহান রাই কেন ৯ জুন শেষকৃত্যের আয়োজন করলেন? এবং ১১ জুন কেন ময়নাতদন্ত করা হলো?”

বিজেপি নেতা আরো প্রশ্ন তুলেছেন, “কেন দিশার ফোন রেকর্ড দেখাচ্ছে যে সেদিন শেষ ফোনটি দিশা করেছিলেন রাত ৮.৩০টায়? এরপরে সেই রাতে কেন প্রায় সাড়ে চার ঘন্টা দিশার ফুল সুইচড অফ ছিলো?

এই ঘটনাগুলি নতুন করে প্রশ্ন তুলছে। আর এটা মোটেই আত্মহত্যার মতো মনে হচ্ছে না। আর তাই এই ঘটনার তদন্ত হওয়া উচিত।”

বিজেপি নেতা দাবি করেছেন যে দিশা সালিয়ান এর মামলাটি সিবিআই এর তদন্ত করা উচিত। কারণ মৃত্যুর দিন নাকি নিজের বাড়ি থেকেই মুম্বাই পুলিশের কাছে ফোন করে সাহায্য চেয়েছিলেন দিশা। সেই ফোনের রেকর্ড খতিয়ে দেখার দাবি করেছেন নিতেশ রানে।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।