স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া: তারকা প্রচারে মজল বাঁকুড়া৷ শেষ রবিবাসরীয় প্রচারে এলেন ঘাটাল লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী ও অভিনেতা দেব৷ এদিন সিমলাপাল হাই স্কুল মাঠে এসে বাঁকুড়া লোকসভা কেন্দ্রের দলীয় প্রার্থী সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের সমর্থনে নির্বাচনী জনসভা করেন তিনি৷

বাঁকুড়া জেলার দুই কেন্দ্রে তৃণমূলপন্থী টলিউডের শিল্পীদের এনে প্রচারে চমক দিতে চাইছে শাসক দল। এদিনও তার ব্যতিক্রম হল না৷ সারেঙ্গার সভা শেষ করে এদিন তিনি কপ্টারে চেপে সরাসরি সিমলাপালের সভামঞ্চের কাছে এসে পৌঁছান। অভিনেতাকে কাছ থেকে দেখতে, হাত মেলাতে তৃণমূল কর্মী সমর্থকদের মধ্যে ব্যাপক হুড়োহুড়ি পড়ে যায়।

দেবকে দেখতে গিয়ে চলল সেলফি তোলার পালা৷ তবে ভক্তদের হুড়োহুড়িতে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির তৈরী হয়। যদিও কিছুক্ষণের মধ্যেই নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা পুলিশ কর্মীরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

এদিন সিমলাপালের সভামঞ্চে বক্তব্য রাখতে গিয়ে ঘাটালের তৃণমূল প্রার্থী ও অভিনেতা দেব রাজ্যের উন্নয়নের খতিয়ান তুলে ধরেন। দলের তরফে বাঁকুড়া লোকসভা কেন্দ্রের প্রার্থী সুব্রত মুখোপাধ্যায় তার একজন ‘প্রিয়’ মানুষ দাবী করে বলেন, এই রোদের মধ্যেও এতো মানুষ এসেছেন৷

‘ধর্ম নিয়ে রাজনীতি হচ্ছে’ অভিযোগ তুলে তিনি বলেন, এই ধর্মকে হাতিয়ার করেই ব্রিটিশরা দু’শো বছরেরও বেশী আমাদের দেশ শাসন করেছিল। আজ আমরা আবারো সেই ‘ধর্মের চক্রব্যুহে’ ভেসে যাচ্ছি।

এদিন তিনি ঘাটাল কেন্দ্রে তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী বিজেপির ভারতী ঘোষকেও এক হাত নেন। তাঁর নাম না করে এবিষয়ে অভিনেতা দেব বলেন, ‘আপনারা দেখেছেন আমার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী গতকাল হুমকি দিয়েছেন ভোট না দিলে কুকুরের মতো মারবো, দরকারে উত্তর প্রদেশ থেকে লোক নিয়ে আসব’। রাজনীতি বর্তমানে এই জায়গায় চলে গিয়েছে বলে অভিযোগ তাঁর৷ এদিনের সভায় সিমলাপাল ব্লক তৃণমূল সভাপতি রামানুজ সিংহমহাপাত্র, দলের নেতা দিলীপ পণ্ডা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও