স্টাফ রিপোর্টার, বালুরঘাট: বাংলার মানুষকে খাদের কিনারায় দাঁড় করিয়ে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেওয়া হয়েছে। সেভাবে টেস্ট করা হলে মহারাষ্ট্রকেও ছাড়িয়ে যাবে এরাজ্যের করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। এখানকার করোনা পরিস্থিতি অত্যন্ত খারাপ। আর এসব কিছুর জন্য একজনই দায়ী তিনি হলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। রবিবার বালুরঘাটে এমনই অভিযোগ করলেন বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু।

বালুরঘাটের লীলা লজ থেকে মালদহে যাওয়ার সময় এরাজ্যের করোনা পরিস্থিতি সম্পর্কে কটাক্ষ করে সায়ন্তন বসু বলেন, “করোনায় কারও মৃত্যু হয়েছে এরকমটা বলা যাবে না। ডেঙ্গুর মতো করোনারও প্রকৃত তথ্য শুরু থেকে লুকোনোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী ও তাঁর সরকার। প্রকৃত তথ্য যাতে কোনও ভাবেই প্রকাশ না পায় সেই মতলবে তিনি অডিট কমিটি গঠন করেছিলেন।”

যে অডিট কমিটি আজ নিখোঁজ বলেও বিজেপি নেতা মন্তব্য করেছেন। করোনার টেস্ট ঠিক মতো না হওয়া প্রসঙ্গে তাঁর অভিমত মহারাষ্ট্রে আক্রান্তের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি কারণ সেখানে টেস্ট বেশি করে করা হচ্ছে।

যা এরাজ্যে একেবারেই করানো হচ্ছে না। কারণ মুখ্যমন্ত্রী ভেবেছেন যে টেস্ট না করানোর মাধ্যমে আক্রান্তের সংখ্যা অন্যান্য রাজ্যের তুলনায় কম দেখিয়ে বাহবা কুড়োবেন। তাঁর মতে এটা করতে গিয়েই রাজ্যের মানুষকে মৃত্যু খাদের কিনারায় নিয়ে গেছেন। ঠিক ভাবে যদি সবার টেস্ট করানো হতো তাহলে দেখা যেত অনেক দিন আগেই মহারাষ্ট্রকে আক্রান্তের সংখ্যায় পিছনে ফেলে দিয়েছে পশ্চিমবঙ্গ।

সায়ন্তন বসুর অভিযোগ, ভয়াবহ এই পরিস্থিতির জন্য মমতা বন্দোপাধ্যায়ই একমাত্র দায়ি। সেই সঙ্গে হেমতাবাদের বিধায়কের অস্বাভাবিক মৃত্যু প্রসঙ্গে তিনি অভিযোগ করে বলেন, বিজেপি কর্মীদের খুন করতে নিত্যনতুন কায়দা বের করছে বর্তমান মুখ্যমন্ত্রীর সরকার।

ফাইল ছবি

বাংলায় এই সরকারের আমলে এখন অবধি একশো সাত জনেরও বেশি দলীয় কর্মকর্তা খুন হয়েছেন। এমনকি বিধায়ককেও ঝুলিয়ে দিয়েছে। খুন করে ফেলার পর বলছে যে সুইসাইড। এমন ভাব যেন বিজেপির লোকেরা ছাড়া আর কেউ সুইসাইডই করেন না বলেও কটাক্ষ করতে ছাড়েননি সায়ন্তন বসু।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও