স্টাফ রিপোর্টার, বর্ধমান: ক্ষমতায় এলে বীরভূমের তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল, রাজ্যের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথকে বিকাশ দুবের মতো এনকাউন্টারের হুমকি দিলেন বিজেপি রাজ্য সম্পাদক রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়। সেইসঙ্গে ফের কালনা থানা জ্বালিয়ে দেওয়ার হুঁশিয়ারি দিলেন তিনি।

কালনা বিধানসভার অন্তর্গত পাথরঘাটা গ্রামের বাসিন্দা রবীন পালের নৃশংস হত্যা ও কদম্বা গ্রামের বিজেপি কর্মীদের মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর অভিযোগের প্রতিবাদ জানাতে মঙ্গলবার কালনা থানা ঘেরাও করে বিজেপি। সেখানেই উপস্থিত ছিলেন রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়।

সেখানে তিনি বলেন, “পুলিশ সঠিক দোষীকে গ্রেফতার করতে পারছে না। সাহস নেই। আমরা চার দিন সময় দিয়েছি। যদি প্রকৃত দোষী গ্রেফতার না হয়, তাহলে তারপর কালনা থানায় কিছু হলে আমাদের কেউ কিছু বলবেন না। আমরা জানি না, কালনায় থানায় তারপর কী হবে।”

আগেই তিনি কালনা থানা জ্বালিয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়েছিলেন। এরপরই তিনি বলেন, “অনেক সহ্য করেছি। এবার স্বপন দেবনাথই হোক আর অনুব্রত মণ্ডলই হোক, বিকাশ দুবে হয়ে যাবেন সবাই।”

উল্লেখ্য, ৫ সেপ্টেম্বর রাস্তায় ১০০ দিনের প্রকল্পের কাজ চলাকালীন গাছের ডাল কাটায় বাধা দেওয়া ঘিরে উত্তেজনা ছড়ায় পূর্ব বর্ধমানের কালনার পাথরঘাটা গ্রামে। এক শ্রমিককে হাঁসুয়া দিয়ে কোপ মারেন স্থানীয় একজন। এরপর প্রকল্পের কাজে যুক্ত শ্রমিকদের গণপ্রহারে হাসপাতালে মৃত্যু হয় রবীন পাল নামে ওই ব্যক্তির।

বিজেপির অভিযোগ, তৃণমূলের সমর্থকরাই খুন করেছে রবীনকে। তিনি বিজেপি করতেন বলেই পরিকল্পনামাফিক হামলা হয়েছে তাঁর উপর। এই অভিযোগ উড়িয়ে দেয় জেলা তৃণমূল। বিজেপির দাবি, এই ঘটনায় মূল অভিযুক্ত তৃণমূল পরিচালিত স্থানীয় পঞ্চায়েতের উপপ্রধান।

তাই তাঁকে গ্রেফতারের দাবিতে সুর চড়াতে মঙ্গলবার কালনা বাসস্ট্যান্ডের কাছে প্রতিবাদ সভার আয়োজন করে বিজেপি। উল্লেখ্য, ঘটনায় এখনও পর্যন্ত দু’পক্ষের বেশ কয়েকজন গ্রেফতার হয়েছে। এর আগেও রাজ্যের শাসক দল তৃণমূলকে আক্রমণ করেন রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়।

এর আগে তিনি বলে ছিলেন, “যারা আজ মারছে, যারা মানুষের উপর অত্যাচার করছে, যারা তৃণমূলের হয়ে গুণ্ডাগিরি করছে, যারা বালি মাফিয়ার কাজ করছে, তাদের একটাই কথা বলবো উত্তরপ্রদেশে বিকাশ দুবের ঘটনা জানেন৷ পরবর্তী কালে বিকাশ দুবের মতো ঘটনা ঘটলে আমাদের দোষ দেবেন না৷ শুধরে যান, না হলে শুধরে দেবো। গুণ্ডাগিরি আর চলবে না৷ প্রত্যেকের উচিত শাস্তি হবে। কেউ ছাড় পাবেন না৷ মাফিয়া রাজের অবসান ভারতীয় জনতা পার্টি করবে।

উল্লেখ্য, ১০ জুলাই পুলিশি এনকাউন্টারে মৃত্যু হয় উত্তরপ্রদেশের গ্যাংস্টার বিকাশ দুবের। বিকাশ দুবের এনকাউন্টারে পুলিশের দাবি, গাড়ি উল্টে যাওয়ায় পুলিশের বন্দুক ছিনিয়ে নিয়ে পালানোর চেষ্টা করে বিকাশ দুবে। সেই সময় পুলিশের গুলিতে মৃত্যু হয় গ্যাংস্টারের।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।