শ্রীনগর: বিজেপি নেতা মেহরাজুদ্দিন মাল্লাকে উদ্ধার করল জম্মু কাশ্মীর পুলিশ। কাশ্মীরের বারামুল্লা থেকে তাঁকে উদ্ধার করা হয়। অজ্ঞাতপরিচয় দুষ্কৃতীরা তাঁকে তুলে নিয়ে গিয়েছিল বলে খবর। এরপরেই উদ্ধার কার্যে নামে জম্মু কাশ্মীর পুলিশ ও সেনা বাহিনী। সারাদিন ধরে চলে তল্লাশি।

সর্বশেষ আপডেট- 00:57:39

উপত্যকায় ফের জঙ্গি নিশানায় বিজেপি নেতা। কাশ্মীরের বারমুল্লায় রাস্তা থেকে অপহরণ করা হল স্থানীয় বিজেপি নেতাকে। সোপোরে বন্ধুর বাড়িতে যাওয়ার সময় রাস্তা থেকেই বিজেপির ওই নেতাকে তুলে নিয়ে যায় জঙ্গিরা। তাঁর খোঁজে এলাকায় জোরদার তল্লাশি শুরু করেছে সেনা।

তবে এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ওই বিজেপি নেতার খোঁজ মেলেনি। জঙ্গিরাই অপহরণের পিছনে রয়েছে বলে দাবি সেনা ও পুলিশের।

বারামুল্লার অপহৃত এই বিজেপি নেতার নাম মেহরাজউদ্দিন মোল্লা। তাঁর পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, সোপোরে এক বন্ধুর বাড়িতে যাচ্ছিলেন তিনি। সেই সময় তাঁকে অপহরণ করে জঙ্গিরা। জানা গিয়েছে, জোর করে একটি গাড়িতে চাপিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে মেহরাজউদ্দিনকে।

উপত্যকায় ৩৭০ ধারা ও ৩৫-এ ধারা বাতিলের পর থেকেই উত্তেজনা আরও বেড়েছে। তবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে লাগাতার প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে জম্মু কাশ্মীর পুলিশ ও সেনাবাহিনী।

একইসঙ্গে চলছে জঙ্গি দমন অভিযান। কাশ্মীরকে জঙ্গিমুক্ত করতে বদ্ধপরিকর কেন্দ্রীয় সরকার। একইসঙ্গে উপত্যকার মানুষের কর্মসংস্থানের লক্ষ্যেও লাগাতার প্রচেষ্টা চলছে। তবে করোনা আবহে সেই উদ্যোগে খানিকটা সমস্যা তৈরি হচ্ছে।

কাশ্মীরে বিজেপি সংগঠন পাকাপোক্ত করার কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। এই বিষয়টিতেই চূড়ান্ত আপত্তি জঙ্গি সংগঠনগুলির।

উপত্যকায় বিজেপির সংগঠনে যাতে কেউ না যুক্ত হন তা নিয়ে ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকবার হুঁশিয়ারি দিয়েছে জঙ্গি সংগঠনগুলি। বিভিন্ন এলাকায় পোস্টার সাঁটিয়ে হুমকি দেওয়া হয়েছে। এরই মাঝে এবার এই অপহরণের ঘটনা।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.