মালদহঃ  রায়গঞ্জে দলীয় কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করতে যাওয়ার পথে মালদহে দলীয় কর্মীদের সঙ্গে বেশ কিছুটা সময় কাটালেন কেন্দ্রীয় সরকারের রাষ্ট্রমন্ত্রী তথা রায়গঞ্জের বিজেপি সাংসদ দেবশ্রী চৌধুরী। ইংলিশ বাজার শহরের পোস্ট অফিস মোড় এলাকায় শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের ছবিতে মাল্যদান করেন তিনি। কথা বলেন সাধারণ মানুষের সঙ্গেও। মানুষের কি প্রয়োজন? অভাব অভিযোগও শোনেন কেন্দ্রীয় এই মন্ত্রী।

অন্যদিকে, রায়গঞ্জের উদ্দেশ্যে রওনা দেওয়ার আগে বিরোধীদের একযোগে আক্রমণ করেন এই বিজেপি নেত্রী। তিনি বলেন, আজকের পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল মানুষের বিশ্বাস থেকে অনেক দূরে সরে গিয়েছে। আজকের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও সেদিনের বিরোধী দল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মধ্যে মানুষ মিল খুঁজে পাচ্ছেন না। সেদিনের সততার প্রতীক মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আজকের দুর্নীতির সবচেয়ে বড় মাধ্যম হয়ে গিয়েছে বলে বিস্ফোরক মন্তব্য করেন দেবশ্রী চৌধুরী। কেন এমন বললেন তিনি? সেই কারণও ব্যাখ্যা করেছেন কেন্দ্রীয়মন্ত্রী।

দেবশ্রী চৌধুরীর দাবি, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যপাধ্যায়ের পরিবারের ভাই ভাইপো নেতারা দুর্নীতি অন্যতম কাণ্ডারী হয়ে গিয়েছে। সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আঞ্চলিক দলগুলির মানুষকে ভুল বুঝিয়ে মূল ভারতবর্ষে থেকে বিচ্ছিন্ন করছে। মঞ্চে এসে নাচানাচি করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পরিষ্কার করে দিলেন মূল ভারতবর্ষ থেকে বিচ্ছিন্ন করে বাংলাদেশ বা পাকিস্তানের সাথে যুক্ত করার পরিকল্পনা আঞ্চলিক দলগুলির আছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর অন্যতম কাণ্ডারী। মানুষ সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছেন ২০২১ বা তার আগে পরে যখন নির্বাচন হবে বাংলায় তৃণমূলকে ধরাশায়ী করবেনই। এমনকি নামো নিশান থাকবে না বলে দাবি তাঁর।

সিপিএম ঘোলা জলে একটুখানি কানাইয়া কুমার জহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের কাঁধে ভর দিয়ে নেতাহীন রাজনৈতিক দল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত ধরে মঞ্চে অবতীর্ণ হয়েছে। সবাই মিলে সিপিএম কংগ্রেস ও তৃণমূল হাত ধরাধরি করে নাটক শুরু করেছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সংবিধান বিরোধী কাজ করছেন। রাস্তায় নেমে সংবিধান ভঙ্গ করছেন। তা রাজ্যপালের খারাপ লাগছে। এটাই পশ্চিমবঙ্গের ট্রাডিশন। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী জানেন এটা ওনাকে মানতে হবে। নাটক করছেন।