আগরতলা: ‘চলো পাল্টাই’ কি এমনই পাল্টে যাওয়ার ছবি ত্রিপুরায় ? সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়েছে প্রশ্ন। একটি ভিডিও ঘিরেই বিতর্ক। এতে সরাসরি বিজেপি নেতার বিরুদ্ধে ধর্ষণ করতে গিয়ে হাতে নাতে ধরা পড়ার অভিযোগ তোলা হয়েছে।

ত্রিপুরায় প্রধান বিরোধী দল সিপিআইএম তাদের ফেসবুক পেজে ধলাই জেলার আমবাসা অঞ্চলের বিজেপি নেতার মার খাওয়ার ভিডিও প্রকাশ করে।

অভিযোগ, বিজেপির আমবাসা মন্ডলের ( দলীয় সংগঠন শাখা কমিটি) অন্যতম প্রভাবশালী নেতা সুভাশিস শিব ধর্ষণ করতে গিয়ে ধরা পড়ে।

সেই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, প্রথমে একটি ঘরে কয়েকজন মিলে ঘিরে ধরেছেন ওই বিজেপি নেতাকে। অনবরত তাকে মারধর করা হচ্ছে। পরে দেখা যায় ওই নেতাকে বেঁধে রাখা হয়েছে। সেখানে মহিলারা ঘিরে রয়েছেন।

এই ছবি ত্রিপুরায় সর্বত্র ভাইরাল হয়েছে। তবে শাসক বিজেপির তরফে কোনও বার্তা দেওয়া হয়নি। রাজ্যের অপর বিরোধী দল কংগ্রেসের তরফেও ঘটনার তীব্র সমালোচনা করা হয়।

আমবাসা বিজেপি মন্ডলের তাবড় নেতা নেগোসিয়েশন বানিজ্যের সম্রাট শুভাশিস শিব ধর্ষন করতে গিয়ে গভীর রাতে ধরা পরলেন।

Cpim Gomati Tripura यांनी वर पोस्ट केले रविवार, १६ फेब्रुवारी, २०२०

এদিকে আমবাসারই বিভিন্ন বিজেপি সমর্থকের দাবি, অভিযুক্ত নেতা সুভাশিস শিব মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের ঘনিষ্ঠ। আবার বিজেপির সর্বভারতীয় নেতা সুনীল দেওধরের কাছের লোক।

সিপিআইএমের দাবি, রাজ্যে টানা ২৫ বছরের বাম শাসনের পর বিজেপি ক্ষমতায় আসতেই শুরু হয়েছে নির্যাতন। রাজনৈতিক সন্ত্রাসের পাশাপাশি দুর্নীতি ও ধর্ষণে জড়িয়েছে বিজেপি নেতৃত্ব। প্রশ্ন তোলা হয়েছে মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের নেতৃত্বে চলা সরকারের প্রশাসনিক ভূমিকা নিয়েও।

ত্রিপুরা প্রদেশ কংগ্রেসের অভিযোগ, বিজেপি নেতৃত্বের একটা অংশ গাঁজা পাচার সহ বিভিন্ন বেআইনি কাজে লিপ্ত। এই সব ঘটনারও ভিডিও ভাইরাল হয়েছে রাজ্যে।

আর বিজেপির জোট সঙ্গী তথা সরকারের প্রধান শরিক উপজাতি সংগঠন আইপিএফটি প্রকাশ্যে সমালোচনা তীব্র করেছে। রাজ্যের উপজাতি এলাকায় উন্নয়নে প্রশাসনের কোনও সদিচ্ছা নেই বলেই তাদের অভিযোগ।

* ভিডিও এবং ছবি সোশ্যাল সাইট থেকে পাওয়া। এর সত্যতা যাচাই করেনি kolkata24x7