তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়া: ২০১৯ সালের লোকসভা ভোটে বিপুল জয়লাভের পর গেরুয়া শিবির এবার বাঁকুড়া পুরসভা দখলে উঠে পড়ে লেগেছে। আর সেই লক্ষ্যেই দলের কৌশল অনুযায়ী সোশ্যাল মিডিয়াকে হাতিয়ার করছেন তারা।

‘উন্নয়নশীল পুরসভা তৈরি’ ও ‘সুন্দর বাঁকুড়া শহর তৈরি করতে’ বিজেপির তরফে পুরবাসীর কাছে হোয়াটসঅ্যাপ আর ইমেলের মাধ্যমে ১৫ মার্চের মধ্যে ‘মতামত’ চাওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে বহুল প্রচারের লক্ষ্যে শহরের বাড়ি বাড়ি পৌঁছে যাচ্ছেন দলের মহিলা মোর্চার সদস্যরা।

বিজেপির এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন শহরবাসীর একাংশ। দেবনন্দা বন্দ্যোপাধ্যায় নামে এক গৃহবধূ বলেন, খুব ভালো উদ্যোগ। যারা কাউন্সিলর বা পুরসভায় যেতে পারেন না তারা সমস্যা সমাধানে এই প্লাটফর্ম যদি ব্যবহার করতে পারেন তো খুব ভালো হয়।

পশ্চিমবঙ্গের অন্যতম ‘নোংরা শহর’ বাঁকুড়া দাবি করে বিজেপির জেলা সভাপতি বিবেকানন্দ পাত্র এবিষয়ে বলেন, সংশ্লিষ্ট হোয়াটসঅ্যাপ ও মেল আইডির মাধ্যমে যারা মতামত দেবেন তাদের সঙ্গে আমরা যোগাযোগ করবো। বিষয়টি ‘ভোটের কৌশল’ স্বীকার করে তিনি আরও বলেন, কি ধরণের পুর পরিষেবা মানুষ চান তা তারা জানানোর সুযোগ পাবেন। দেবীনা চৌধুরী মজুমদার নামে আর এক শহরবাসী বলেন, ভোট আসে ভোট যায়, প্রতিশ্রুতিই সার। বিজেপির এই উদ্যোগকেও এখনও বিশ্বাস করতে পারছেন না তিনি। তার কথায়, প্রতিশ্রুতি পূরণ হতে দেখলেই মতামত দেওয়া সম্ভব। তার আগে নয়।

তৃণমূল নেতা ও বাঁকুড়া পুরসভার পুরপ্রধান মহাপ্রসাদ সেনগুপ্ত বিজেপিকে পাত্তা দিতে নারাজ। তিনি বলেন, এরা ‘ভোট পাখি’। ওই দলের দুই সাংসদ গত একবছরে জেলার জন্য কি কাজ করেছেন সে নিয়েও তিনি প্রশ্ন তোলেন।