ভোপাল: বিজেপিশাসিত কেন্দ্রীয় সরকারের ব্যর্থতার জন্যই দেশে ভয়াল পরিস্থিতি তৈরি করেছে মারণ ভাইরাস করোনা, এমনই অভিযোগ মধ্যপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা কংগ্রেস নেতা কমলনাথের। করোনা রুখতে কেন্দ্র যথোপযুক্ত পদক্ষেপ করেনি বলেই গোটা দেশ আজ ভয়ঙ্কর সংকটের মুখে এসে দাঁড়িয়েছে বলে অভিযোগ কমলনাথের।

করোনার দায় কেন্দ্রীয় সরকারের উপরেই চাপালেন কমলনাথ। একইসঙ্গে তাঁর আরও অভিযোগ, ‘মধ্যপ্রদেশ বিধানসভা যাতে সচল থাকে সেই লক্ষ্যেই সংসদ চালাচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকার। আমার নেতৃত্বাধীন মধ্যপ্রদেশের কংগ্রেস সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করাই ছিল কেন্দ্রের অন্যতম লক্ষ্য।’

কিছুদিন আগেই জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়ার কংগ্রেস ছাড়ার পরেই মধ্যপ্রদেশ সরকারের পতনের সূচনা হয়েছিল। জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়ার সঙ্গেই কংগ্রেস ছাড়েন বেশ কয়েয়কজন বিধায়ক। ফলে সংখ্যালঘু হয়ে পড়ে মধ্যপ্রদেশের কমলনাথ নেতৃত্বাধীন কংগ্রেস সরকার।

শেষমেশ পরিস্থিতি অনুকূলে নই দেখে ইস্তফা দেন মুখ্যমন্ত্রী কমলনাথ। জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়াও যোগ দেন বিজেপিতে। মধ্যপ্রদেশে কয়েক বছরেই ফের পালাবদল। কংগ্রেসকে ক্ষমতাচ্যুত করে ফের মসনদে বসেন শিবরাজ সিং চৌহান। তৈরি হয় বিজেপিশাসিত মধ্যপ্রদেশ সরকার।

মধ্যপ্রদেশে কংগ্রেসকে ক্ষমতাচ্যুত করার পিছনে মাস্টারপ্ল্যান ছিলে কেন্দ্রীয় সরকারের, এমনই মনে করেন কংগ্রেস নেতা তথা মধ্যপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী কমলনাথ। এরই পাশাপাশি এবার দেশে করোনাভাইরাসের জেরে তৈরি হওয়া দারুণ সংকট নিয়েও কেন্দ্রকেই কাঠগড়ায় তুলেছেন বর্ষীয়ান এই কংগ্রেস নেতা। কমলনাথের অভিযোগ ভয়াল ভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে যথোপযুক্ত পদক্ষেপই করেনি কেন্দ্রীয় সরকার।

দেশে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা। শুধু গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ৩৪ জনের। আক্রান্ত হয়েছেন ৮০০০-এরও বেশি। স্বাস্থ্য মন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, দেশে এখনও পর্যন্ত করোনায় মোট মৃত্যু হয়েছে ২৭৩ জনের। মারণ ভাইরাসে এখনও পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ৮,৩৫৬ জন। শেষ ২৪ ঘন্টায় করোনার বলি ৩৪ জন। গত ২৪ ঘন্টায় দেশে আক্রান্তের সংখ্যা ৯০৯।

মধ্যপ্রদেশেও বেড়েই চলেছে কোভিড-19-এর সংক্রমণ। রবিবার পর্যন্ত মধ্যপ্রদেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৫৩২ জন। সেরাজ্যে এখনও পর্যন্ত মারণ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ৩৬ জনের।

প্রশ্ন অনেক: দ্বিতীয় পর্ব